Home > Songs > প্রকৃতি

প্রকৃতি

বিশ্ববীণারবে বিশ্বজন মোহিছেকুসুমে কুসুমে চরণচিহ্নএকি আকুলতা ভুবনে
আজ তালের বনেরআঁধার কুঁড়ির বাঁধনপূর্ণচাঁদের মায়ায় আজি
কত যে তুমিআকাশভরা সূর্য-তারাব্যাকুল বকুলের ফুলে
নাই রস নাইদারুণ অগ্নিবাণে রেএসো এসো হে
হৃদয় আমার, ওইএসো, এসো, এসোনমো নমো, হে
মধ্যদিনে যবে গানওই বুঝি কালবৈশাখীপ্রখর তপনতাপে আকাশ
বৈশাখের এই ভোরেরবৈশাখ হে, মৌনীশুষ্কতাপের দৈত্যপুরে দ্বার
হে তাপস, তবমধ্যদিনের বিজন বাতায়নেতপস্বিনী হে ধরণী
চক্ষে আমার তৃষ্ণাএসো শ্যামল সুন্দরওই আসে ওই
ঝরঝর বরিষে বারিধারাগহন ঘন ছাইলহেরিয়া শ্যামল ঘন
শাঙনগগনে ঘোর ঘনঘটামেঘের 'পরে মেঘআষাঢ়সন্ধ্যা ঘনিয়ে এল
আজ বারি ঝরেকাঁপিছে দেহলতা থরথরআমার দিন ফুরালো
বাদল-মেঘে মাদল বাজেওগো আমার শ্রাবণমেঘেরতিমির-অবগুণ্ঠনে বদন তব
আকাশতলে দলে দলেকদম্বেরই কানন ঘেরিআষাঢ়, কোথা হতে
ছায়া ঘনাইছে বনেএই শ্রাবণ-বেলা বাদল-ঝরাশ্রাবণবরিষন পার হয়ে
আজ কিছুতেই যায়গহন রাতে শ্রাবণধারাযেতে দাও যেতে
ভেবেছিলেম আসবে ফিরেআজি ওই আকাশ-'পরেও আষাঢ়ের পূর্ণিমা
শ্যামল ছায়া, নাইবা গেলেআহ্বান আসিল মহোৎসবেকোন্ পুরাতন প্রাণের
নীল- অঞ্জনঘন পুঞ্জছায়ায়আজ শ্রাবণের আমন্ত্রণেপথিক মেঘের দল
বজ্রমানিক দিয়ে গাঁথাওরে ঝড় নেমে আয়এই শ্রাবণের বুকের
মেঘের কোলে কোলেউতল-ধারা বাদল ঝরেওই-যে ঝড়ের মেঘের
কখন বাদল-ছোঁওয়া লেগেআজ নবীন মেঘেরআজ আকাশের মনের
এই সকাল বেলারপুব-সাগরের পার হতেআজি বর্ষারাতের শেষে
শ্রাবণমেঘের আধেক দুয়ারবহু যুগের ও পারবাদল-বাউল বাজায় রে
একি গভীর বাণীআজি হৃদয় আমারভোর হল যেই
বৃষ্টিশেষের হাওয়া কিসেরবাদল-ধারা হল সারাঝরে ঝরো ঝরো
এসো নীপবনে ছায়াবীথিতলেকোথা যে উধাওআজ শ্রাবণের পূর্ণিমাতে
পুব-হাওয়াতে দেয় দোলাঅশ্রুভরা বেদনা দিকেধরণীর গগনের মিলনের
বন্ধু, রহো রহোএকলা বসে বাদল-শেষেশ্যামল শোভন শ্রাবণ
নমো, নমো, নমোতপের তাপের বাঁধনওই কি এলে
গগনে গগনে আপনার মনেশ্রাবণ, তুমি বাতাসেকেন পান্থ, এ চঞ্চলতা
আজি শ্রাবণঘনগহন মোহেআজি ঝড়ের রাতেচলে ছলোছলো নদীধারা
আমারে যদি জাগালেআবার এসেছে আষাঢ়এসো হে এসো
চিত্ত আমার হারালোআবার শ্রাবণ হয়েধরণী, দূরে চেয়ে
হৃদয়ে মন্দ্রিল ডমরুমধু -গন্ধে ভরাআমি তখন ছিলেম
আমি শ্রাবণ-আকাশে ওইভোর থেকে আজনীল নবঘনে আষাঢ়গগনে
থামাও রিমিকি-ঝিমিকি বরিষনআজি পল্লিবালিকা অলকগুচ্ছওই মালতীলতা দোলে
আঁধার অম্বরে প্রচণ্ডহৃদয় আমার নাচেআজ বরষার রূপ
মনে হল যেনতৃষ্ণার শান্তি, সুন্দরকান্তিমম মন-উপবনে চলে
আজি বরিষনমুখরিতযায় দিন, শ্রাবণদিনআমি কী গান
কিছু বলব ব'লেমন মোর মেঘেরমোর ভাবনারে কী
আমার প্রিয়ার ছায়াওগো সাঁওতালি ছেলেবাদল-দিনের প্রথম কদম
আজি তোমায় আবারএসো গো, জ্বেলেআজি ঝরো ঝরো
শ্রাবণের গগনের গায়স্বপ্নে আমার মনেশেষ গানেরই রেশ
এসেছিলে তবু আসএসেছিনু দ্বারে তবনিবিড় মেঘের ছায়ায়
আমার যে দিনপাগলা হাওয়ার বাদল-দিনেআজি মেঘ কেটে
সঘন গহন রাত্রিওগো তুমি পঞ্চদশীআজি শরততপনে প্রভাতস্বপনে
মেঘের কোলে রোদআজ ধানের ক্ষেতেআমরা বেঁধেছি কাশের গুচ্ছ
অমল ধবল পালেআমার নয়ন-ভুলানো এলেশিউলি ফুল, শিউলি
শরতে আজ কোন্আজ প্রথম ফুলেরওগো শেফালিবনের মনের
শরত-আলোর কমলবনেতোমার মোহন রূপেশরৎ, তোমার অরুণ
তোমরা যা বলোকোন্ খেপা শ্রাবণআকাশ হতে খসল
হৃদয়ে ছিলে জেগে,সারা নিশি ছিলেমদেখো দেখো, দেখো
ওলো শেফালি, ওলোএসে শরতের অমলএবার অবগুণ্ঠন খোলো
তোমার নাম জানিমরি লো কারআমার রাত পোহালো
নির্মল কান্ত, নমোআলোর অমল কমলখানিসেই তো তোমার
পোহালো পোহালো বিভাবরী,নব কুন্দধবলদলসুশীতলাহিমের রাতে ওই
হায় হেমন্তলক্ষ্মীহেমন্তে কোন্ বসন্তেরইসে দিন আমায়
নমো, নমো, নমোশীতের হাওয়ার লাগলশিউলি-ফোটা ফুরোল যেই
এল যে শীতেরপৌষ তোদের ডাকছাড়্ গো তোরা
আমরা নূতন প্রাণেরআর নাই যে দেরি,একি মায়া, লুকাও
মোরা ভাঙব তাপসশীতের বনে কোন্নমো, নমো. নমো
হে সন্ন্যাসী, হিমগিরিনব বসন্তের দানেরএস' এস' বসন্ত,
আজি বসন্ত জাগ্রতএনেছ ওই শিরীষও মঞ্জরী, ও মঞ্জরী
কার যেন এইদোলে দোলে দোলেঅনন্তের বাণী তুমি
এবার এল সময়ওরে গৃহবাসী খোল্একটুকু ছোঁওয়া লাগে
ওগো বধূ সুন্দরীআমার বনে বনেআমি পথভোলা এক
আজি দখিন-দুয়ারবসন্তে কি শুধুওগো দখিন হাওয়া
আকাশ আমায় ভরলমোর বীণা ওঠেওরে ভাই, ফাগুন
এতদিন যে বসেছিলেমবসন্তে ফুল গাঁথলওরে আয় রে
বসন্ত, তোর শেষদিনশেষে বসন্ত যাসব দিবি কে
বাকি আমি রাখবফল ফলাবার আশাযদি তারে নাই
ধীরে ধীরে ধীরেদখিন-হাওয়া, জাগো জাগোসহসা ডালপালা তোর
সে কি ভাবেওই ভাঙল হাসির বাঁধও আমার চাঁদের
ও চাঁদ, তোমায়শুক্‌নো পাতা কেতোমার বাস কোথা-যে
আজ দখিন-বাতাসেবিদায় যখন চাইবেএবেলা ডাক পড়েছে
না, যেয়ো নাএবার বিদায়বেলার সুরআজ খেলা ভাঙার খেলা
আজ কি তাহারচরণরেখা তব যেনমো নমো, নমো
তোমার আসন পাতবকে রঙ লাগালেমন যে বলে
বকুলগন্ধে বন্যা এলবাসন্তী, হে ভুবনমোহিনীআন্ গো তোরা
ফাগুন, হাওয়ায় হাওয়ায়নিবিড় অমা-তিমির হতেহে মাধবী, দ্বিধা কেন
ওরা অকারণে চঞ্চলফাগুনের নবীন আনন্দেবেদনা কী ভাষায়
চলে যায় মরিবসন্তে-বসন্তে তোমার কবিরেআমার মল্লিকাবনে যখন
ক্লান্ত যখন আম্রকলিরতুমি কিছু দিয়েআজি এই গন্ধবিধুর
এবার ভাসিয়ে দিতেবসন্তে আজ ধরারতুমি কোন্ পথে
অনেক দিনের মনেরপুরাতনকে বিদায় দিলেঝরো-ঝরো ঝরো-ঝরো
পূর্বাচলের পানে তাকাইনীল আকাশের কোণেমাধবী হঠাৎ কোথা
নীল দিগন্তে ওইবসন্ত তার গানফাগুনের শুরু হতেই
ফাগুনের পূর্ণিমা এলএক ফাগুনের গানওরে বকুল, পারুল,
নিশীথরাতের প্রাণচেনা ফুলের গন্ধস্রোতেমধুর বসন্ত এসেছে
আমার মালার ফুলেরআজি কমলমুকুলদল খুলিলপুষ্প ফুটে কোন্
এই মৌমাছিদের ঘরছাড়াবিদায় নিয়ে গিয়েছিলেমএই কথাটাই ছিলেম
এবার তো যৌবনেরসেই তো বসন্তনিবিড় অন্তরতর বসন্ত
নব নব পল্লবরাজিমম অন্তর উদাসেফাগুন-হাওয়ায় রঙে রঙে
ঝরা পাতা গো