Home > Songs > পূজা

পূজা

কান্নাহাসির-দোল-দোলানোসুরের গুরু, দাওতোমার সুরের ধারা
তুমি কেমন করে গানআমি তোমায় যততুমি যে সুরের আগুন
তোমার বীণা আমারতোমার নয়ন আমায়অরূপ, তোমার বাণী
গানে গানে তব বন্ধনআমার সুরে লাগেআমার বেলা যে যায়
জীবনমরণের সীমানা ছাড়ায়েযারা কথা দিয়েতোমারি ঝরনাতলার
কূল থেকে মোরতোমার কাছে এ বরকেন তোমরা আমায়
দাঁড়িয়ে আছ তুমি আমাররাজপুরীতে বাজায় বাঁশিজাগ জাগ রে
হেথা যে গানআমি হেথায় থাকিগানের সুরের আসনখানি
সুর ভুলে যেইগানের ভিতর দিয়েখেলার ছলে সাজিয়ে
যতখন তুমি আমায়আমার যে গানগানের ঝরনাতলায়
কন্ঠে নিলেম গানআমার ঢালা গানের ধারাকবে আমি বাহির হলেম
তোমায় আমায় মিলন হবেপ্রভু তোমার বীণাতুমি একলা ঘরে
শুধু তোমার বাণীতোমার সুর শুনায়েমোর হৃদয়ের গোপন বিজন ঘরে
মোর প্রভাতের এইমালা হতে খসে-পড়াএতো আলো জ্বালিয়েছ
কার হাতে এই মালাবলো তো এইবারের মতোতোমায় নতুন করেই
ধীরে বন্ধু ধীরে ধীরেএবার আমায় ডাকলে দূরেদুঃখের বরষায়
সে দিনে আপদ আমারআমার হিয়ার মাঝেকেন চোখের জলে ভিজিয়ে
আমায় বাঁধবে যদিওদের সাথে মেলাওআমারে তুমি অশেষ
প্রভু, বলো বলো কবেআমার না-বলা বাণীরআমার হৃদয়
ভেঙে মোর ঘরের চাবিতোমায় কিছু দেবআমায় অভিমানের বদলে
তুমি খুশি থাকআমার সকল রসের ধারারাত্রি এসে যেথায়
আমার খেলা যখনসীমার মাঝে, অসীমআজি যত তারা
আমি কেমন করিয়াপ্রভু আমারতুমি বন্ধু, তুমি নাথ
ও অকূলের কূলআমার মাঝে তোমারি মায়াভুলে যাই থেকে থেকে
তোমার এই মাধুরীএরে ভিখারি সাজায়েআপনাকে এই জানা
তুমি যে এসেছতুমি যে চেয়ে আছআমার বাণী আমার
অসীম ধন তোযদি আমায় তুমিযিনি সকল কাজের কাজী
আমরা তারেই জানিযা হবার তা হবেঅন্ধকারের মাঝে আমায়
হে মোর দেবতাশুধু কি তারআমারে তুমি কিসের ছলে
সভায় তোমার থাকিতোমার প্রেমেলুকিয়ে আস আঁধার রাতে
তুমি কি এসেছআলোকের এই ঝর্নাধারায়এ অন্ধকার ডুবাও
ধায় যেন মোরজীবন যখন শুকায়ে যায়পাত্রখানা যায় যদি
গাব তোমার সুরেশ্রাবণের ধারার মতোবাজাও আমারে বাজাও
তুমি যত ভারদাঁড়াও আমার আঁখির আগেযদি এ আমার
তোমারি রাগিণী জীবনকুঞ্জেচরণ ধরিতেতোমারি নাম বলব
আমার এ ঘরেসংসারে তুমি রাখিলেআমার মুখের কথা
প্রাণ ভরিয়ে তৃষা হরিয়েবল দাও মোরেঅন্তর মম বিকশিত
আমার বিচার তুমি করোতোমারি ইচ্ছা হউকঅন্ধজনে দেহো আলো
হে মহাজীবনপথে যেতে ডেকেছিলেদুয়ারে দাও মোরে
ধনে জনে আছিতোমারি সেবক করোতুমি এবার আমায়
হৃদয়ে তোমার দয়াভুবনেশ্বর হেআমার সত্য মিথ্যা
ভয় হতে তবপদপ্রান্তে রাখ সেবকেবরিষ ধরা-মাঝে
সার্থক কর সাধনআমার মিলন লাগিকোথায় আলো
তোরা শুনিস নিহে অন্তরের ধনতোমার পূজার ছলে
নীরবে আছ কেনতোমার আমার এইনিশা-অবসানে কে দিল
বিশ্ব যখন নিদ্রামগনযে দিন ফুটল কমলপ্রভু তোমা লাগি
যদি তোমার দেখাহেরি অহরহআমার গোধূলিলগন
নাই বা ডাকোসকাল-সাঁজে ধায় যেজগৎ জুড়ে উদার সুরে
কোন্ শুভখনেআজ জ্যোৎস্নারাতেতুমি এ-পার ও-পার
বেলা গেল তোমারতোর ভিতরে জাগিয়াতুমি বাহির থেকে
এখনো গেল না আঁধারলক্ষ্মী যখন আসবেযেতে যেতে চায় না
বেসুর বাজে রেআমার কণ্ঠ তাঁরে ডাকেদেবতা জেনে দূরে
ক্লান্তি আমারঅগ্নিবীণা বাজাও তুমিপথ চেয়ে যে
সন্ধ্যা হল গোতুমি ডাক দিয়েছএ যে মোর আবরণ
সকল জনম ভরেআমার ব্যথা যখনযতবার আলো
আবার এরা ঘিরেছেতুমি নব নব রূপেহৃদয়নন্দনবনে
বসে আছি হেডাকিছ শুনি জাগিনুআমি কারে ডাকি গো
আজি মম মন চাহেআমার মন তুমিঘাটে বসে আছি
এই মলিন বস্ত্রনিবিড় ঘন আঁধারেপ্রতিদিন তব গাথা
নিশীথশয়নে ভেবে রাখিপ্রতিদিন আমিজাগিতে হবে রে
আমার যা আছেজড়ায়ে আছে বাধাউড়িয়ে ধ্বজা
আপনারে দিয়ে রচিলিবাঁধন ছেঁড়ার সাধনআমায় মুক্তি যদি দাও
বিশ্বজোড়া ফাঁদ পেতেছএ আবরণ ক্ষয় হবেসহজ হবি
এই কথাটা ধরে রাখিসসেই তো আমি চাইআর রেখো না
দুঃখের তিমিরেআমার আঁধার ভালোএবার দুঃখ আমার
যারে নিজে তুমিআমায় দাও গো বলেতোর শিকল আমায়
আমি মারের সাগরবাহিরে ভুল ভাঙবেআমার সকল দুখের প্রদীপ
আজি বিজন ঘরেযখন তোমায় আঘাত করিদুঃখ যদি না পাবে তো
যেতে যেতে একলা পথেনা বাঁচাবে আমায়মোর মরণে
হৃদয় আমার প্রকাশ হলযখন তুমি বাঁধছিলে তারএই-যে কালো মাটির বাসা
এক হাতে ওর কৃপাণআগুনের পরশমণিওরে, কে রে
আঘাত করে নিলেওগো আমার প্রাণেরসুখে আমায় রাখবে কেন
ও নিঠুরআমার হৃদয়েতেতোমার কাছে শান্তি
যে রাতে মোরভয়েরে মোর আঘাত করোবজ্রে তোমার বাজে বাঁশি
এই করেছ ভালোআরো আঘাত সইবে আমারআমি বহু বাসনায়
প্রচণ্ড গর্জনেবিপদে মোরে রক্ষা করোআরো আরো প্রভু
তোমার সোনার থালায়দুখের বেশে এসেছ বলেতোমার পতাকা যারে দাও
দুখ দিয়েছহে মহাদুঃখসর্ব খর্বতারে দহে
নয় এ মধুর খেলাজাগো হে রুদ্রপিনাকেতে লাগে টঙ্কার
প্রাণে গান নাইযা হারিয়ে যায়আনন্দ তুমি স্বামি
ওরে ভীরুওই আলো যেতোমার দ্বারে কেন আসি
তুমি জানো, ওগো অন্তর্যামীতোমার দুয়ার খোলার ধ্বনিআমার যে আসে কাছে
হার-মানা হারআছে দুঃখ, আছে মৃত্যুঅন্তরে জাগিছ অন্তরযামী
দীর্ঘ জীবনপথআজি কোন্ ধন হতেকে যায় অমৃতধামযাত্রী
চোখের আলোয় দেখেছিলেমএবার নীরব করে দাওএকমনে তোর একতারাতে
গভীর রজনী নামিল হৃদয়েভুবন হইতে ভুবনবাসীজীবন যখন ছিল
বাধা দিলে বাধবে লড়াইতুই কেবল থাকিসদাঁড়াও, মন
নদীপারের এই আষাঢ়েরশান্ত হ রে মম চিত্তশুভ নব শঙ্খ তব
পূর্বগগনভাগেমন, জাগ মঙ্গললোকেভোরের বেলা কখন এসে
এখনো ঘোরআজি নির্ভয়নিদ্রিতভোর হল বিভাবরী
নিশার স্বপন ছুটল রেঅনেক দিনের শূন্যতা মোরহে চিরনূতন
প্রাণের প্রাণ জাগিছেজাগো নির্মল নে?স্বপন যদি ভাঙিলে
বাজাও তুমি, কবিমনোমোহন, গহন যামিনীশেষেপান্থ, এখনো কেন
দুঃখরাতে, হে নাথডাকো মোরে আজিহরষে জাগি আজি
বিমল আনন্দে জাগো রেসবে আনন্দ করোতুমি আপনি জাগাও মোরে
নূতন প্রাণ দাওশোনো তাঁর সুধাবাণীনিশিদিন চাহো রে
ওঠো ওঠো রেওদের কথায় ধাঁদা লাগেজানি নাই গো
আমায় ভুলতে দিতেআমার সকল কাঁটাতাই তোমার আনন্দ
তব সিংহাসনের আসন হতেজীবনে যত পূজাজানি জানি কোন্
তুমি যে আমারে চাওজানি হে যবেনিভৃত প্রাণের দেবতা
ভক্ত করিছে প্রভুর চরণেএসেছে সকলে কত আশেধ্বনিল আহ্বান মধুর গম্ভীর
কী গাব আমিসফল করো হে প্রভুহৃদিমন্দিরদ্বারে বাজে
ওই পোহাইল তিমিররাতিআজি বহিছে বসন্তপবনআনন্দগান উঠুক তবে বাজি
এ দিন আজিওই অমল হাতেতার অন্ত নাই গো
তোমার আনন্দ ওইপ্রাণে খুশির তুফান উঠেছেপারবি না কি
প্রেমে প্রাণে গানে গন্ধেজগতে আনন্দযজ্ঞেগায়ে আমার পুলক লাগে
আলোয় আলোকময় করেআজি এ আনন্দসন্ধ্যাবাজে বাজে রম্যবীণা বাজে
বিপুল তরঙ্গ রেসদা থাকো আনন্দেবহে নিরন্তর
অমল কমল সহজেআনন্দধারা বহিছে ভুবনেনব আনন্দে জাগো
হেরি তব বিমলমুখভাতিএত আনন্দধ্বনি উঠিল কোথায়আঁধার রজনী পোহালো
হৃদয়বাসনা পূর্ণ হলক্ষত যত ক্ষতি যতআমি সংসারে মন দিয়েছিনু
আজিকে এই সকালবেলাতেযে ধ্রুবপদ দিয়েছ বাঁধিওরে, তোরা যারা
মহাবিশ্বে মহাকাশেআছ আপন মহিমা লয়েআমার মুক্তি আলোয় আলোয়
আমার প্রাণে গভীর গোপনআজি মর্মরধ্বনি কেনপ্রথম আলোর চরণধ্বনি
তোমার হাতের রাখীখানিবুঝেছি কি বুঝি নাইফেলে রাখলেই কি পড়ে রবে
দেওয়া নেওয়া ফিরিয়ে-দেওয়াঅরূপবীণা রূপের আড়ালেআমি জ্বালব না মোর
আমি যখন তাঁর দুয়ারেআকাশ জুড়ে শুনিনুঅকারণে অকালে মোর
ভুবনজোড়া আসনখানিডাকে বার বার ডাকেঅন্ধকারের উৎস-হতে
সারা জীবন দিল আলোআপন হতে বাহির হয়েযে থাকে থাক-না দ্বারে
আকাশে দুই হাতেনিত্য তোমার যে ফুল ফোটেএমনি করে ঘুরিব দূরে
কোলাহল তো বারণ হলযেথায় তোমার লুট হতেছেবিশ্বসাথে যোগে যেথায়
প্রভু, আজি তোমারঅমন আড়াল দিয়েকত অজানারে জানাইলে তুমি
সবার মাঝারে তোমারে স্বীকারমোরে ডাকি লয়ে যাওযারা কাছে আছে
জাগ্রত বিশ্বকোলাহল-মাঝেশান্তিসমুদ্র তুমি গভীরডুবি অমৃতপাথারে
ভেঙেছ দুয়ার, এসেছ জ্যোতির্ময়হবে জয়, হবে জয়জয় হোক, জয় হোক
জয় তব বিচিত্র আনন্দসকলকলুষতামসহররাখো রাখো রে জীবনে
হৃদয়মন্দিরে, প্রাণাধীশওই শুনি যেনবেঁধেছ প্রেমের পাশে
দাও হে আমারআর নহে, আর নয়আরো চাই যে
নয়ন ছেড়ে গেলে চলেআরাম-ভাঙা উদাস সুরেআসা-যাওয়ার মাঝখানে
বারে বারে পেয়েছিএ পথ গেছে কোন্‌খানেনিত্য নব সত্য তব
যদি ঝড়ের মেঘের মতোতুমি আমাদের পিতাপ্রেমানন্দে রাখো পূর্ণ
মাঝে মাঝে তব দেখা পাইতোমার কথা হেথাকেন বাণী তব নাহি শুনি
তুমি ছেড়ে ছিলেঅসীম আকাশে অগণ্য কিরণচরণধ্বনি শুনি তব
শূন্য হাতে ফিরিহৃদয়বেদনা বহিয়াকেন জাগে না
যাদের চাহিয়াআমি জেনে শুনেনয়ান ভাসিল জলে
হিংসায় উন্মত্তঅনেক দিয়েছ নাথতব অমল পরশরস
বীণা বাজাও হেশান্তি করো বরিষনহে সখা, মম হৃদয়ে
লহো লহো তুলিচিরসখা, ছেড়ো নাস্বামী, তুমি এসো
হায় কে দিবেআর কত দূরেকামনা করি একান্তে
নাথ হে, প্রেমপথেপূর্ণ-আনন্দ পূর্ণমঙ্গলরূপেসংশয়তিমিরমাঝে
নিশিদিন মোর পরানেআছ অন্তরে চিরদিনএ মোহ-আবরণ
ডাকিছ কে তুমিআজি নাহি নাহি নিদ্রাতিমিরবিভাবরী
অমৃতের সাগরেকার মিলন চাওতোমা লাগি, নাথ
মোরে বারে বারে ফিরালেকোথা হতে বাজেনিকটে দেখিব তোমারে
তোমার দেখা পাব বলেঘোর দুঃখে জাগিনুএ পরবাসে
এখনো আঁধার রয়েছেব্যাকুল প্রাণ কোথাশূন্য প্রাণ কাঁদে সদা
সুখহীন নিশিদিনদূরে কোথায় দূরে দূরেপিপাসা হায় নাহি মিটিল
দিন যায় রেতোমা-হীন কাটে দিবসবর্ষ গেল, বৃথা গেল
কেমনে ফিরিয়া যাওকে বসিলে আজিঅসীম কালসাগরে
ইচ্ছা যবে হবেশুভ্র আসনে বিরাজপেয়েছি অভয়পদ
শুনেছে তোমার নামসত্য মঙ্গল প্রেমময়চিরবন্ধু চিরনির্ভর
বাঁচান বাঁচি, মারেন মরিসংসারে কোনো ভয় নাহিশক্তিরূপে হেরো
শ্রান্ত কেন ওহে পান্থগাও বীণাকে রে ওই ডাকিছে
মন্দিরে মম কে আসিলেএকি করুণা করুণাময়পেয়েছি সন্ধান তব
আমার হৃদয়সমুদ্রতীরেজননী, তোমার করুণতিমিরদুয়ার খোলো
তুমি জাগিছ কেআজি শুভ শুভ্র প্রাতেভক্তহৃদিবিকাশ
বাণী তব ধায়প্রথম আদি তব শক্তিশীতল তব পদছায়া
হে মহাপ্রবল বলীজগতে তুমি রাজাতুমি ধন্য ধন্য হে
তাঁহারে আরতি করেআনন্দলোকেওই রে তরী
আমি কী বলেসংসার যবে মনওহে জীবনবল্লভ
সবাই যারেআমার যে সবআমি দীন, অতি দীন
কী ভয় অভয়ধামেআনন্দ রয়েছে জাগিসকল ভয়ের ভয়
নয়ন তোমারেদয়া দিয়ে হবে গোএ মণিহার আমায় নাহি
যেথায় থাকে সবার অধমওই আসনতলেরআমার মাথা নত করে
গরব মোর হরেছভয় হয় পাছেআজি প্রণমি তোমারে
যে-কেহ মোরেকে জানিত তুমিজীবনে আমার যত
আঁখিজল মুছাইলেতোমারি গেহেহৃদয়ে হৃদয় আসি
ফুল বলেনমি নমি চরণেএকটি নমস্কারে
তোমারি নামে নয়ন মেলিনুঅনিমেষ আঁখি সেইমম অঙ্গনে স্বামী
আজি মম জীবনেকেমনে রাখিবি তোরাহে নিখিলভারধারণ
দেবাধিদেব মহাদেবদিন ফুরালো হেজরজর প্রাণে, নাথ
কোথায় তুমি, আমিসকল গর্ব দূরএই লভিনু সঙ্গ
সুন্দর বটে তবআলো যে আজমোর সন্ধ্যায় তুমি
এই তো তোমারযদি প্রেম দিলেমহারাজ, একি সাজে
হৃদয়শশী হৃদিগগনেআমারে দিই তোমারকে গো অন্তরতর
এই-যে তোমারতোমারি মধুর রূপেলহো লহো তুলে
ডাকিল মোরে জাগারওহে সুন্দর, মরিতোমায় চেয়ে আছি
তুমি সুন্দর, যৌবনঘনওই মরণের সাগরপারেওগো সুন্দর, একদা
রুদ্রবেশে কেমন খেলাজাগে নাথ জোছনারাতেসুন্দর বহে আনন্দমন্দানিল
চিরদিবস নব মাধুরীএকি লাবণ্যে পূর্ণআজি হেরি সংসার
প্রভাতে বিমল আনন্দেএ কী সুগন্ধহিল্লোলএকি এ সুন্দর
মধুর রূপে বিরাজরহি রহি আনন্দতরঙ্গআমি কান পেতে
আমি তারেই খুঁজেসে যে মনেরআমার প্রাণের মানুষ
আমার মন, যখনআমি তারেই জানিজানি জানি তোমার
তোমার খোলা হাওয়াআমি যখন ছিলেমআমারে পাড়ায় পাড়ায়
মন রে ওরেকোন্ আলোতে প্রাণেরআমারে কে নিবি
আমার এই পথ-চাওয়াতেইহাওয়া লাগে গানেরপথ দিয়ে কে
এই আসা-যাওয়ারআমার আর হবেপান্থ তুমি, পান্থজনের
ওগো, পথের সাথিঅশ্রুনদীর সুদূর পারেপথিক্ হে
এবার রঙিয়ে গেলহার মানালে গো,আমার পথে পথে
তুমি হঠাৎ-হাওয়ায়পথে চলে যেতেআমার ভাঙা পথের
পাতার ভেলা ভাসাইআমাদের খেপিয়ে বেড়ায়চলি গো, চলি
এখন আমার সময়ওরে পথিক, ওরেমোর পথিকেরে বুঝি
ছিন্ন পাতার সাজাইনা রে, নাআপনি আমার কোন্‌খানে
পথ এখনো শেষযা পেয়েছি প্রথমজয় জয় পরমা
আঁধার রাতে একলামরণের মুখে রেখেরজনীর শেষ তারা,
কোন্ খেলা যেঅচেনাকে ভয় কীআবার যদি ইচ্ছা কর
পুষ্প দিয়ে মারমেঘ বলেছে 'যাব যাব'জানি গো, দিন
অল্প লইয়া থাকিতোমার অসীমেআমি আছি তোমার
পেয়েছি ছুটি, বিদায়আমার যাবার বেলাতেআঁধার এলে বলে
দিন যদি হলতোমার হাতের অরুণলেখাদিনের বেলায় বাঁশি
মধুর, তোমার শেষদিন অবসান হলশেষ নাহি যে
রূপসাগরে ডুব দিয়েছিকেন রে এইজয় ভৈরব
আগুনে হল আগুনময়ওরে, আগুন আমারদুঃখ যে তোর
মরণসাগরপারেযেতে যদি হয়পথের শেষ কোথায়
যাত্রাবেলায় রুদ্র রবেআজকে মোরে বোলো না