Home > Verses > মানসী

মানসী

সূচনা (বাল্যকাল থেকে পশ্চিম-ভারত ) উপহার (নিভৃত এ চিত্তমাঝে নিমেষে নিমেষে বাজে) ভুলে (কে আমারে যেন এনেছে ডাকিয়া)
ভুল-ভাঙা (বুঝেছি আমার নিশার স্বপন) বিরহানন্দ (ছিলাম নিশিদিন আশাহীন প্রবাসী) ক্ষণিক মিলন (একদা এলোচুলে কোন্‌ ভুলে ভুলিয়া)
শূন্য হৃদয়ের আকাঙক্ষা (আবার মোরে পাগল করে) আত্মসমর্পণ (আমি এ কেবল মিছে বলি) নিষ্ফল কামনা (বৃথা এ ক্রন্দন)
সংশয়ের আবেগ (ভালোবাস কি না বাস বুঝিতে পারি নে) বিচ্ছেদের শান্তি (সেই ভালো, তবে তুমি যাও) তবু (তবু মনে রেখো, যদি দূরে যাই চলি)
একাল ও সেকাল (বর্ষা এলায়েছে তার মেঘময় বেণী) আকাঙক্ষা (আর্দ্র তীব্র পূর্ববায়ু বহিতেছে বেগে) নিষ্ঠুর সৃষ্টি (মনে হয় সৃষ্টি বুঝি বাঁধা নাই নিয়মনিগড়ে)
প্রকৃতির প্রতি (শত শত প্রেমপাশে টানিয়া হৃদয়) মরণস্বপ্ন (কৃষ্ণপক্ষ প্রতিপদ। প্রথম সন্ধ্যায়) কুহুধ্বনি (প্রখর মধ্যাহ্নতাপে প্রান্তর ব্যাপিয়া কাঁপে)
পত্র (দক্ষিণে বেঁধেছি নীড়, চুকেছে লোকের ভিড়) সিন্ধুতরঙ্গ (দোলে রে প্রলয় দোলে অকূল সমুদ্র-কোলে) শ্রাবণের পত্র (পরিপূর্ণ বরষায় আছি তব ভরসায়)
নিষ্ফল প্রয়াস (ওই যে সৌন্দর্য লাগি পাগল ভুবন) হৃদয়ের ধন (কাছে যাই, ধরি হাত, বুকে লই টানি) নিভৃত আশ্রম (সন্ধ্যায় একেলা বসি বিজন ভবনে)
নারীর উক্তি (মিছে তর্ক-- থাক্‌ তবে থাক্‌) পুরুষের উক্তি (যেদিন সে প্রথম দেখিনু) শূন্য গৃহে (কে তুমি দিয়েছ স্নেহ মানবহৃদয়ে)
জীবনমধ্যাহ্ন (জীবন আছিল লঘু প্রথম বয়সে) শ্রান্তি (কত বার মনে করি পূর্ণিমানিশীথে) বিচ্ছেদ (ব্যাকুল নয়ন মোর, অস্তমান রবি)
মানসিক অভিসার (মনে হয় সেও যেন রয়েছে বসিয়া) পত্রের প্রত্যাশা (চিঠি কই! দিন গেল বইগুলো ছুঁড়ে ফেলো) বধূ (বেলা যে পড়ে এল, জলকে চল্‌)
ব্যক্ত প্রেম (কেন তবে কেড়ে নিলে লাজ-আবরণ) গুপ্ত প্রেম (তবে পরানে ভালোবাসা কেন গো দিলে) অপেক্ষা (সকল বেলা কাটিয়া গেল)
দুরন্ত আশা (মর্মে যবে মত্ত আশা) দেশের উন্নতি (বক্তৃতাটা লেগেছে বেশ) বঙ্গবীর (ভুলুবাবু বসি পাশের ঘরেতে)
সুরদাসের প্রার্থনা (ঢাকো ঢাকো মুখ টানিয়া বসন) নিন্দুকের প্রতি নিবেদন (হউক ধন্য তোমর যশ) কবির প্রতি নিবেদন (হেথা কেন দাঁড়ায়েছ, কবি)
পরিত্যক্ত (মনে আছে সেই প্রথম বয়স) ভৈরবী গান (ওগো, কে তুমি বসিয়া উদাসমুরতি) ধর্মপ্রচার (ওই শোনো ভাই বিশু)
নববঙ্গদম্পতির প্রেমালাপ (জীবনে জীবন প্রথম মিলন) প্রকাশবেদনা (আপন প্রাণের গোপন বাসনা) মায়া (বৃথা এ বিড়ম্বনা)
বর্ষার দিনে (এমন দিনে তারে বলা যায়) মেঘের খেলা (স্বপ্ন যদি হ'ত জাগরণ) ধ্যান (নিত্য তোমায় চিত্ত ভরিয়া)
পূর্বকালে (প্রাণমন দিয়ে ভালোবাসিয়াছে) অনন্ত প্রেম (তোমারেই যেন ভালোবাসিয়াছি) আশঙ্কা (কে জানে এ কি ভালো)
ভালো করে বলে যাও (ওগো, ভালো করে বলে যাও) মেঘদূত (কবিবর, কবে কোন্‌ বিস্মৃত বরষে) অহল্যার প্রতি (কী স্বপ্নে কাটালে তুমি দীর্ঘ দিবানিশি)
গোধূলি (অন্ধকার তরুশাখা দিয়ে) উচ্ছৃঙ্খল (এ মুখের পানে চাহিয়া রয়েছ) আগন্তুক (ওগো সুখী প্রাণ, তোমাদের এই)
বিদায় (অকূল সাগর-মাঝে চলেছে ভাসিয়া) সন্ধ্যায় (ওগো তুমি, অমনি সন্ধ্যার মতো হও) শেষ উপহার (আমি রাত্রি, তুমি ফুল। যতক্ষণ ছিলে কুঁড়ি)
মৌন ভাষা (থাক্‌ থাক্‌, কাজ নাই, বলিয়ো না কোনো কথা) আমার সুখ (ভালোবাসা-ঘেরা ঘরে কোমল শয়নে তুমি)