Home > Verses > স্ফুলিঙ্গ - অপ্রচলিত সংগ্রহ

স্ফুলিঙ্গ - অপ্রচলিত সংগ্রহ

১ (প্রথম পাতাখানি মেলেছে শতদল) ২ (লিখব তোমার রঙিন পাতায় কোন্‌ বারতা) ৩ (কলাবিদ্যা কুঞ্জে-কুঞ্জে পুঞ্জ পুঞ্জ ফল)
৪ (আমার মূর্তি পূর্ণ করি) ৫ (পূর্ণতা আসুক আজি তোমাদের তরুণ জীবনে) ৬ (কল্যাণপ্রতিমা শান্তা সেবা-সুধা-ভরা)
৭ (হে মহা ধীমান) ৮ (একদিন অতিথির প্রায়) ৯ (তোমাদের)
১০ (তোমাদের এই মিলন-বসন্তে) ১১ (যুগল প্রেমের কল্যাণমালা) ১২ (পশ্চিম দিকের প্রান্তে ম্লায়মান রবি)
১৩ (মিলনের রথ চলে জীবনের) ১৪ (বর্ষ পরে বর্ষ গেছে চ'লে) ১৫ (অন্তরে মিলনপুষ্প)
১৬ (খেলার খেয়াল বশে কাগজের তরী) ১৭ (পূর্বের দিগন্তমূলে) ১৮ (বহুদিন কেন তব সহাস্য)
১৯ (তব জীবনের গ্রন্থখানিতে) ২০ (অন্তরে তব স্নিগ্ধ মাধুরী পুঞ্জিত) ২১ (তোমারে করিবে বন্দী নিত্যকাল মৃত্তিকা-শৃঙ্খলে)
২২ (বিকশি কল্যাণবৃন্তে যুগলের হিয়া) ২৩ (আকাশে চেয়ে আলোক-বর) ২৪ (তোমার জীবনধারা)
২৫ (জীবনের তপস্যায় এই লক্ষ্য মনে দিয়ো রেখে) ২৬ (তোমার লেখনী যেন ন্যায়দণ্ড ধরে) ২৭ (মোহন কন্ঠ সুরের ধারায় যখন বাজে)
২৮ (নাই হল চাক্ষুষ পরিচয়) ২৯ (আমার নামের আখরে জড়ায়ে) ৩০ (হে অপরিচিতা, লিখিয়া আমার নাম)
৩১ (দুর্গম সংসার-পথে আজ হতে, হে যুগল যাত্রী) ৩২ (আমি তোমার শ্যালী ক্ষুদ্রতমা) ৩৩ (যূগলমিলনমন্ত্রে নব স্বর্গলোক)
৩৪ (অস্তরবি-কিরণে তব জীবন-শতদল) ৩৫ (তোমরা যুগল প্রেমে রচিতেছ যে আশ্রমখানি) ৩৬ (উদয়পথের তরুণ পথিক তুমি)
৩৭ (নবমিলন-পুর্ণিমায়) ৩৮ (হাবলুবাবুর মন পাব ব'লে) ৩৯ (যুগলে তোমারা করো এক-চিতে)
৪০ (ভোরের বেলায় যে জন পাঠালে রঙিন মেঘের পাঁতি) ৪১ (লেখন আমার ম্লান হয়ে আসে) ৪২ (এসেছিলে জীবনের আনন্দ-দূতিকা)
৪৩ (তোমার দুটি হাতের সেবা) ৪৪ (পাঠালে এ যে আমসত্ত্ব) ৪৫ (তোমরা দুজনে একমনা)
৪৬ (তোমার নামের সাথে) ৪৭ (যে মিলনে সংসারের সুখদুঃখ সহস্র ধারায়) ৪৮ (বাঙাল যখন আসে)
৪৯ (সুধীর বাঙাল গেল কোথায়) ৫০ (নাকের ডগা ঘসিয়া হাসে) ৫১ (সুধীর যখন কর্ম করেন সু-- ধীর করক্ষেপে)
৫২ (লেখার যত আবর্জনা, জেনে রেখো সকলে) ৫৩ (আরোগ্যশালার রাজকবি) ৫৪ (সুধাকান্ত)
৫৫ (খাতাভরা পাতা তুমি ভোজে দিলে পেতে) ৫৬ (পথে যবে চলি মোর ছায়া পড়ে লুটায়ে) ৫৭ (অস্তসিন্ধু পার হয়ে)
৫৮ (আপনারে তুমি লুকাবে কেমন করে) ৫৯ (আমার বুড়ো বয়সখানা ছিল বসে একা) ৬০ (ঊষার কলকাকলিতে)
৬১ (কূল-ছাড়া যে মানুষ সাগরিক) ৬২ (জন্মদিন এল তব আজি) ৬৩ (তব কন্ঠে বাসা যদি পায় মোর গান)
৬৪ (তব নব প্রভাতের রক্তরাগখানি) ৬৫ (তোমার গ্রন্থ-দানের গ্রন্থি) ৬৬ (নব সংসার সৃষ্টির ভার)
৬৭ (বৈশাখের বেলফুল) ৬৮ (যুগল প্রাণের মিলনের পরে) ৬৯ (যে লেখা কেবলি রেখা তার বেশি নয়)
৭০ (লেখা যদি চাও এখনি) ৭১ (শান্তা, তুমি শান্তিনাশের ভয় দেখালে মোরে) ৭২ (সংগীতের বাণীপথে)
৭৩ (সায়াহ্নে রবির কর পড়িল গগন নীলিমায়)