Home > Stories > লিপিকা > আগমনী

আগমনী    


এমনি করেই দিন যায়। আমার ভূমি দিগন্ত পেরিয়ে গেল, ইমারতে পাঁচতলা সারা হয়ে ছ'তলার ছাদ পিটোনো চলছে। এমন সময়ে একদিন বাদলের মেঘ কেটে গেল; কালো মেঘ হল সাদা; কৈলাসের শিখর থেকে ভৈরোঁর তান নিয়ে ছুটির হাওয়া বইল, মানস-সরোবরের পদ্মগন্ধে দিনরাত্রির দণ্ডপ্রহরগুলোকে মৌমাছির মতো উতলা করে দিলে। উপরের দিকে তাকিয়ে দেখি, সমস্ত আকাশ হেসে উঠেছে আমার ছয়তলা ঐ বাড়িটার উদ্ধত ভারাগুলোর দিকে চেয়ে।

 

আমি তো ব্যাকুল হয়ে পড়লেম; যাকে দেখি তাকেই জিজ্ঞাসা করি, 'ওগো, কোন্‌ হাওয়াখানা থেকে আজ নহবত বাজছে বলো তো।'

 

একটা খ্যাপা পথের ধারে গাছের গুঁড়িতে হেলান দিয়ে, মাথায় কুন্দফুলের মালা জড়িয়ে চুপ করে বসে ছিল। সে বললে, 'আগমনীর সুর এসে পৌঁছল।'

 

আমি যে কী বুঝলেম জানি নে; বলে উঠলেম, 'তবে আর দেরি নেই।'

 

সে হেসে বললে, 'না, এল ব'লে।'

 

তখনি খাতাঞ্জিখানায় এসে মনকে বললেম, 'এবার কাজ বন্ধ করো।'

 

মন বললে, 'সে কী কথা। লোকে যে বলবে অকর্মণ্য।'

 

আমি বললেম, 'বলুক গে।'

 

মন বললে, 'তোমার হল কী। কিছু খবর পেয়েছ নাকি।'

 

আমি বললেম, 'হাঁ, খবর এসেছে।'

 

'কী খবর।'

 

মুশকিল, স্পষ্ট ক'রে জবাব দিতে পারি নে। কিন্তু, খবর এসেছে। মানস-সরোবরের তীর থেকে আলোকের পথ বেয়ে ঝাঁকে ঝাঁকে হাঁস এসে পৌঁছল।

 

মন মাথা নেড়ে বললে, 'মস্ত বড়ো রথের চুড়ো কোথায়, আর মস্ত ভারি সমারোহ? কিছু তো দেখি নে, শুনি নে।'

 

বলতে বলতে আকাশে কে যেন পরশমণি ছুঁইয়ে দিলে। সোনার আলোয় চার দিক ঝল্‌মল্‌ করে উঠল। কোথা থেকে একটা রব উঠে গেল, 'দূত এসেছে।'

 

আমি মাটিতে মাথা ঠেকিয়ে দূতের উদ্দেশে জিজ্ঞাসা করলেম, 'আসছেন নাকি।'

 

চার দিক থেকে জবাব এল, 'হাঁ, আসছেন।'

 

মন ব্যস্ত হয়ে বলে উঠল, 'কী করি! সবেমাত্র আমার ছয়তলা বাড়ির ছাদ পিটোনো চলছে; আর, সাজ সরঞ্জাম সব তো এসে পৌঁছল না।'

 

উত্তর শোনা গেল, 'আরে ভাঙো ভাঙো, তোমার ছতলা বাড়ি ভাঙো।'

 

মন বললে, 'কেন।'

 

উত্তর এল, 'আজ আগমনী যে। তোমার ইমারতটা বুক ফুলিয়ে পথ আটকেছে।'

 

মন অবাক হয়ে রইল।

 

আবার শুনি, 'ঝেঁটিয়ে ফেলো তোমার সাজ সরঞ্জাম।'

 

মন বললে, 'কেন।'

 

'তোমার সরঞ্জাম যে ভিড় করে জায়গা জুড়েছে।'

 

যাক গে। কাজের দিনে ব'সে ব'সে ছতলা বাড়ি গাঁথলেম, ছুটির দিনে একে একে সব-ক'টা তলা ধূলিসাৎ করতে হল। কাজের দিনে সাজ সরঞ্জাম হাটে হাটে জড়ো করা গেল, ছুটির দিনে সমস্ত বিদায় করেছি।

 

কিন্তু, মস্ত বড়ো রথের চুড়ো কোথায়, আর মস্ত ভারি সমারোহ?

 

মন চার দিকে তাকিয়ে দেখলে।

 

কী দেখতে পেলে।

 

শরৎ প্রভাতের শুকতারা।

 

কেবল ঐটুকু?

 

হাঁ, ঐটুকু। আর দেখতে পেলে শিউলিবনের শিউলিফুল।

 

কেবল ঐটুকু?

 

হাঁ, ঐটুকু। আর দেখা দিল লেজ দুলিয়ে ভোরবেলাকার একটি দোয়েল পাখি।

 

আর কী।

 

আর, একটি শিশু, সে খিল্‌খিল্‌ ক'রে হাসতে হাসতে মায়ের কোল থেকে ছুটে পালিয়ে এল বাইরের আলোতে।

 

'তুমি যে বললে আগমনী, সে কি এরই জন্যে।'

 

'হাঁ, এরই জন্যেই তো প্রতিদিন আকাশে বাঁশি বাজে, ভোরের বেলায় আলো হয়।'

 

'এরই জন্যে এত জায়গা চাই?'

 

'হাঁ গো, তোমার রাজার জন্যে সাতমহলা বাড়ি, তোমার প্রভুর জন্যে ঘরভরা সরঞ্জাম। আর, এদের জন্যে সমস্ত আকাশ, সমস্ত পৃথিবী।'

 

'আর, মস্ত-বড়ো?'

 

'মস্ত-বড়ো এইটুকুর মধ্যেই থাকেন।'

 

'ঐ শিশু তোমাকে কী বর দেবে।'

 

'ঐ তো বিধাতার বর নিয়ে আসে। সমস্ত পৃথিবীর আশা নিয়ে, অভয় নিয়ে, আনন্দ নিয়ে। ওরই গোপন তূণে লুকোনো থাকে ব্রহ্মাস্ত্র, ওরই হৃদয়ের মধ্যে ঢাকা আছে শক্তিশেল।'

 

মন আমাকে জিজ্ঞসা করলে, 'হাঁ গো কবি, কিছু দেখতে পেলে, কিছু বুঝতে পারলে?'

 

আমি বললেম, 'সেই জন্যেই ছুটি নিয়েছি। এত দিন সময় ছিল না, তাই দেখতে পাই নি, বুঝতে পারি নি।'