ভীরু    


কেন এ কম্পিত প্রেম, অয়ি ভীরু, এনেছ সংসারে--

                   ব্যর্থ করি রাখিবে কি তারে।

            আলোকশঙ্কিত তব হিয়া

            প্রচ্ছন্ন নিভৃত পথ দিয়া

                   থেমে যায় প্রাঙ্গণের দ্বারে।

 

হায়, সে যে পায় নাই আপন নিশ্চিত পরিচয়,

                   বন্দী তারে রেখেছে সংশয়।

            বাহিরে সামান্য বাধা সেও

            সে-প্রেমেরে কেন করে হেয়,

                      অন্তরেও তার পরাজয়।

 

ওই শোনো কেঁপে ওঠে নিশীথরাত্রির অন্ধকার,

                      আহ্বান আসিছে বারম্বার।

            থেকো না ভয়ের অন্ধ ঘেরে,

            অবজ্ঞা করিয়ো দুর্গমেরে,

                   জিনি লহো সত্যেরে তোমার।

 

নিষ্ঠুরকে মেনে লহো সুদুঃসহ দুঃখের উৎসাহে,

                   প্রেমের গৌরব জেনো তাহে।

            দীপ্তি দেয় রুদ্ধ অশ্রুজল,

            নষ্ট আশা হয় না নিষ্ফল,

                      সমুজ্জল করে চিত্তদাহে।

 

শীর্ণ ফুল রৌদ্রে পুড়ে কালো হয়, হোক-না সে কালো--

                      দীন দীপে নিবুক-না আলো।

            দুর্বল যে মিথ্যার খাঁচায়

            নিত্যকাল কে তারে বাঁচায়,

                  মরে যাহা মরা তার ভালো।

 

আঘাত বাঁচাতে গিয়ে বঞ্চিত হবে কি এ-জীবন,

                  শুধিবে না দুর্মূল্যের পণ।

            প্রেম সে কি কৃপণতা জানে,

            আত্মরক্ষা করে আত্মদানে--

                  ত্যাগবীর্যে লভে মুক্তিধন।

 

 

  ১০ মাঘ, ১৩৩৮