Home > Verses > সেঁজুতি >                অমর্ত

               অমর্ত    


আমার মনে একটুও নেই বৈকুন্ঠের আশা।--

                   ওইখানে মোর বাসা

                   যে মাটিতে শিউরে ওঠে ঘাস,

          যার 'পরে ওই মন্ত্র পড়ে দক্ষিনে বাতাস।

চিরদিনের আলোক-জ্বালা নীল আকাশের নীচে

          যাত্রা আমার নৃত্যপাগল নটরাজের পিছে।

ফুল ফোটাবার যে রাগিণী বকুল শাখায় সাধা,

          নিষ্কারণে ওড়ার আবেগ চিলের পাখায় বাঁধা,

                   সেই দিয়েছে রক্তে আমার ঢেউয়ের দোলাদুলি;

স্বপ্নলোকে সেই উড়েছে সুরের পাখনা তুলি।

                             দায়-ভোলা মোর মন

                   মন্দে-ভালোয় সাদায়-কালোয় অঙ্কিত প্রাঙ্গণ

                                      ছাড়িয়ে গেছে দূর দিগন্ত-পানে

                   আপন বাঁশির পথ-ভোলানো তানে।

দেখা দিল দেহের অতীত কোন্‌ দেহ এই মোর

                   ছিন্ন করি বস্তুবাঁধন-ডোর।

                   শুধু কেবল বিপুল অনুভূতি,

          গভীর হতে বিচ্ছুরিত আনন্দময় দ্যুতি,

                   শুধু কেবল গানেই ভাষা যার,

          পুষ্পিত ফাল্গুনের ছন্দে গন্ধে একাকার;

          নিমেষহারা চেয়ে-থাকার দূর অপারের মাঝে

                             ইঙ্গিত যার বাজে।

                   যে দেহেতে মিলিয়ে আছে অনেক ভোরের আলো,

          নাম-না-জানা অপূর্বেরে যার লেগেছে ভালো,

                   যে দেহেতে রূপ নিয়েছে অনির্বচনীয়

                             সকল প্রিয়ের মাঝখানে যে প্রিয়,

                   পেরিয়ে মরণ সে মোর সঙ্গে যাবে--

          কেবল রসে, কেবল সুরে, কেবল অনুভাবে।

 

 

  শান্তিনিকেতন, ১১ মার্চ ১৯৩৭