Home > Verses > রূপান্তর > পরিশিষ্ট ১

পরিশিষ্ট ১    


                  ১

     নায়িকা সঁ দূতি উক্তি

কণ্টক মাঁহ কুসুম পরগাসে।

বিকল ভমর নহিঁ পাবথি বাসে॥

ভমরা ভরমে রমে সভ ঠামেঁ।

তুঅ বিনু মালতি নহিঁ বিসরামেঁ॥

ও মধুজীব তোঁহৈ মধু রাসে।

সঞ্চি ধরিএ মধু মনহিঁ লজা সে॥

অপনহুঁ মন দয় বুঝু অবগাহে।

ভমর মরত বধ লাগত কাহে॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি তৌঁ পয় জীবে।

অধর সুধা রস জৌঁ পয় পীবে॥ ২

 

                ১

[ক]ণ্টকমাঝারে কুসুমপরকাশ,

[বি]কল ভ্রমর সেথা নাহি পায় বাস।

[ভ্র]মভরে ভ্রমর রমিছে নানা ঠাঁই--

[তু]হু বিনা, হে মালতী, বিশ্রাম নাই।

[ও] যে মধুজীবী তোমারি মধু চায়--

[স]ঞ্চি রেখেছ মধু মনের লজ্জায়।

[আ]পনার মন দিয়া বুঝ সুবিচারে

[ভ্রম]রবধের দায় লাগিবে কাহারে।

[বি]দ্যাপতি ভনয়ে তখনি পাবে প্রাণ

[অ]ধরপীযূষরস যদি করে পান। ২

 

                 ২

         নায়ক সঁ দূতি বচন

     মাধব করিঅ সুমুখি সমধানে।

তুঅ অভিসার কয়লি জত সুন্দরি

     কামিনি করু কে আনে॥

               ....

[১] দেখি ভবন ভিতি লিখল ভুজঙ্গ পতি

     জসু মন পরম তরাসে।

সে সুবদনি কর ঝপইতি ফণি মণি

     বিহুসি আইলি তুঅ পাসে॥

               ....

কাম প্রেম দুহু এক মত ভয় রহু

     কখনে কী ন করাবে॥ ৭

 

                         ২

সুন্দরী রমণী তোমার অভিসার যত করিয়াছে,

     এত আর কে করিয়াছে?

[ভ]বনভিত্তিতে লিখিত [ভু]জঙ্গপতি দেখিয়া

     যার মন [প]রম ত্রাসিত হয়,

সেই সুবদনী [ফ]ণিমণি করে ঢাকিয়া

     হাসিয়া [তো]মার কাছে আসিল।*

               ...

কাম প্রেম উভয়ে যদি একমত হইয়া থাকে,

     তবে কখন্‌ কী না করায়! ৭

*করে [ফ]ণিমণি ঢাকিবার তাৎপর্য [বো]ধ করি এইরূপ হইবে যে, [পা]ছে ফণিমণির আলোকে [তা]হাকে দেখা যায়, গোপন অভিসারের ব্যাঘাত করে।

 

               ৩

     নায়ক সঁ নায়িকা বচন

রাহু মেঘ ভয় গরসল সূর।

পথ পরিচয় দিবসহিঁ ভেল দূর॥

নহিঁ বরিসয় অবসর নহিঁ হোএ।

পুর পরিজন সঞ্চর নহিঁ কোএ॥

               ....

এহি সংসার সারবস্তু এহ।

তিলা এক সঙ্গম জাব জিব নেহ॥ ১৯

 

                         ৩

[রা]হু মেঘ হইয়া / আকার ধারণ করিয়া, সূর্য গ্রাস করিল।

               ....

এখন বর্ষণ হইতেছে না,

     এবং দিনের বেলায় অবসর নাই,

সেই-হেতু পুরপরিজন কেহ সঞ্চরণ করিতে[ছে] না।

               ....

     যাবজ্জীবন প্রেমের পর এক তিল সঙ্গম। ১৯

 

                  ৪

     রাধা কৃষ্ণ বিলাস বর্ণন

বদন মিলায় ধয়ল মুখ মণ্ডল

কমল বিমল জনি চন্দা।

ভমর চকোর দুঅও অলসাএল

পীবি অমিএ মকরন্দা॥ ৩৭

 

                         ৪

মুখমণ্ডলে বদন মিলাইয়া ধরিল,

পদ্মের উপরে চাঁদ।

অমিয়-মকরন্দ পান করিয়া

পবন [২] ও চকোর দুজনেই অলসিত হইল--

কামিনী চকোর, পুরুষ ভ্রমর। ৩৭

 

                  ৫

     সখী সঁ নায়িকা বচন

সমুদ্র ঐসনি নিসি ন পাবিঅ ওরে।

কখন উগত মোর হিত ভয় সূরে॥ ৩৮

 

                   ৫

[স]মুদ্রের মতো নিশির [পার] পাই না।

[আ]মার হিতকর হইয়া [সূ]র্য কখন্‌ উদিত হয়! ৩৮

 

                         ৬

     নায়ক ও মুগ্ধা নায়িকা মিলন

     মাধব সিরিস কুসুম সম রাহী।

লোভিত মধুকর কৌসল অনুসর

     নব রস পিবু অবগাহী॥

               ....

আরতি পতি পরতীতি ন মানথি

     কি করথি কেলিক নামেঁ॥

               ....

চাঁপল রোস জলজ জনি কামিনি

     মেদনি দেল উপেখে।

               ....

এক অধর কৈ নীবি নিরোপলি

     দু পুনি তীনি ন হোঈ।

কুচ জুগ পাঁচ পাঁচ শশি ঊগল

     কি লয় ধরথি ধনি গোঈ॥

আকুল অলপ বেয়াকুল লোচন

     আঁতর পূরল নীরে।

মনমথি মীন বনসি লয় বেধল

     দেহ দসো দিশি ফীরে॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি দুহুক মুদিত মন

     মধুকর লোভিত কেলী।

অসহ সহথি কত কোমল কামিনি

     জামিনি জিব দয় গেলী॥ ২৯

 

                         ৬

     লোভিত মধুকর কৌশল অনুসরি

     অবগাহিয়া নবরস পান করে।

               ........

আরতি পতি পরতীতি মানে না--

কেলির নামে কী করে!

          ........

রোষে যেন মাটিতে উপেক্ষায়

পদ্মকে চাপিল।

এক হাত অধরে, এক হাত নীবিতে,

কিন্তু তিন হাত তো নেই--

কুচযুগে যে পাঁচটা পাঁচটা

শশী উদিত হই[ল]

কী দিয়ে ধনী সেটা গোপন করে!

অল্প আকুল, ব্যাকুল লোচনান্তর

নীরে [পূরিল]

মন্মথ মীনকে বংশী দিয়া বিঁধিল,

তাহা [র...] দশ দিকে ফিরিতেছে।

          ........

কোমল কামিনী অসহ কত সয়--

যামিনী জীবন দিয়া গেল। ২৯

 

                    ৭

        সখী সঁ নায়িকা বচন

     সখি হে কিলয় বুঝাএব কন্তে।

জনিকা জন্ম হোইত হম গেলহুঁ

     ঐলহুঁ তনিকর অন্তে॥

জাহি লয় গেলহুঁ সে চল আএল

     তৈঁ তরু রহলি ছপাঈ।

সে পুনি গেল তাহি হম আনলি

     তৈঁ হম পরম অন্যাঈ॥

জৈঁতহিঁ নাল কমল হম তোরলি

     করয় চাহ অবশেখে।

কোহ কোহাএল মধুকর ধায়ল

     তেঁহি অধর করু দংশে॥

লেলি ভরল কুম্ভ তৈঁ উর গাসলি

     সসরি খসল কেশ পাশে।

সখি দস আগুপাছু ভয় চললিহি

     তেঁ উর্ধ স্বাস ন বাকে॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি সুনু বর জৌমতি

     ঈ সভ রাখু মন গোঈ।

দিন দিন ননদি সঁ প্রীতি বঢ়াএব

     বোলি বেকত জনু হোঈ॥ ৩৯

 

                         ৭

[যাঁ]হার জন্মে গেলেম [তাঁ]হার অন্তে আসিলাম।

সূর্যোদয়ে অথবা চন্দ্রোদয়ে (?) গেলেম,

সূর্যাস্তে বা চন্দ্রাস্তে আসিলাম।

যাহার জন্য গেলেম সে চলিয়া আসি[ল],

তাই তরুতলে লুকাইলাম।

সে পুন গেল, তাকে আমি আনিলা[ম],

সে আমার পরম অন্যায়।

যখন কমল নাল ভাঙিয়া অবশেষে হাতে লইলাম

শব্দ করিয়া মধুকর ধাইল,

আমার অধর দংশন করিল।

কুম্ভ ভরিয়া লইলাম,

তাই উরস্থল গ্রাসিয়া কেশপাশ সরিয়া খসিয়া পড়িল।

দশজন সখী আগুপাছু হইয়া চলিল,

তেঁই ঊর্‌ধ্বশ্বাস ও বাক্য নাই।

মনে গোপন করিয়া রাখ।

দিনে দিনে ননদীর সহিত প্রীতি বাড়াই[বি],

বললে পাছে ব্যক্ত হয়ে পড়ে। ৩৯

 

                    ৮

        ননদি সঁ নায়িকা বচন

     ননদী সরূপ নিরূপহ দোসে।

বিনু বিচার ব্যভিচার বুঝৈবহ

     সাসু করয়বহ রোসে॥

কৌতুক কমল নাল হম তোড়লি

     করয় চাহলি অবতংসে।

রোষ কোষ সঁ মধুকর ধাওল

     তেঁহি অধর করু দংশে॥

সরোবর ঘাট বাট কণ্টক তরু

     হেরি নহিঁ সকলহুঁ আগু।

সাঁকর বাট উবটি হম চললহুঁ

     তেঁ কুচ কণ্টক লাগু॥

গরূঅ কুম্ভ সির থির নহিঁ থাকয়

     তেঁও ধসল কেশ পাসে।

সখি জন সঁ হম পাছূ পড়লহুঁ

     তেঁ ভেল দীর্ঘ নিশাসে॥

পথ অপরাধ পিশুন পরচারল

     তথিহুঁ উতর হম দেলা।

অমরখ তাহি ধৈরজ নহিঁ রহলৈ

     তেঁ গদ গদ সুর ভেলা॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি সুনু বর জউবতি

     ঈ সভ রাখহ গোঈ।

নন্‌দী সঁ রস রীতি বচাওব

     গুপুত বেকত নহিঁ হোঈ॥ ৪০

 

                         ৮

বিনা বিচারে ব্যভিচার বুঝ, শাশুড়িকে রাগাও।

কৌতুকে কমলনাল তুলিয়া

অবতংস করিতে চাহিলাম,

রোষে আক্রোশে মধুকর ধাইয়া অধর দংশন করিল।

সরোবর-ঘাটে বাটে কণ্টকতরু,

সকলগুলে[] আবার চোখেও পড়ে না।

               .........

তাই কেশপাশ ধসিল,

আমি সখীদের পিছিয়ে পড়েছিলুম

তাই দীর্ঘনিশ্বাস।

পথে অপরাধের নিন্দা প্রচারিল,

আমি তার উত্তর দিলেম।

মূর্খ, তাই ধৈর্য ছিল না--

স্বরটা সেই জন্যে গদ্‌গদ-গোছ হয়েছে।

               ........

ননদী হইতে রসরীতি বাঁচিয়ে রেখো,

দেখো গোপন যেন ব্যক্ত না হয়ে পড়ে। ৪০

 

                 ৯

     সখী সঁ নায়িকা বচন

......একহিঁ নগর বসু মাধব সজনী

     পর ভাবিনি বস ভেল।

               .......

অভিনব এক কমল ফুল সজনী

     দৌনা নীমক ডার।

সেহো ফুল ওতহি সুখাএল সজনী

     রসময় ফুলল নেবার।

বিধি বস আজ আএল ছথি সজনী

     এত দিন ওতহি গমায়।

কোন পরি করব সমাগম সজনী

     মোর মন নহিঁ পতিআয়॥ ৪৩

 

               ৯

      এক নগরেই মাধব বাস করে,

কিন্তু পরভাবিনীর বশ হইল।

               ........

অভিনব এক কমলফুল

নিমের দোনায় ডারে।

সে ফুল আতপে শুকাইল,

রসময় হইয়া ফুটিতে পারিল না।

বিধিবশে আজ আইল,

পরে আবার কাহার সহিত সমাগম হইবে--

আমার মন প্রত্যয় যায় না। ৪৩

 

               ১০

     নায়ক সঁ নায়িকা বচন

লোচন অরুণ বুঝলি বড় ভেদ।

রৈনি উজাগরি গুরুঅ নিবেদ॥

ততহিঁ জাহ হরি ন করহ লাথ।

রৈনি গমৌলহ জনিকেঁ সাথ॥

কুচ কুঙ্কুম মাখল হিঅ তোর।

জনি অনুরাগ রাগি কর গোর॥

আনক ভূষণ লাগল অঙ্গ।

উকুতি বেকত হোঅ আনক সঙ্গ॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি বজবহুঁ বাধ।

বড়াক অনয় মৌন পয় সাধ॥ ৪৪

 

               ১০

[লোচ]ন অরুণ, ইহার ভেদ বুঝিতেছি--

রাত্রিজাগরণগুরু নির্বেদ।

[যাও যাও] আর ভাণ কোরো না।

[যার] সঙ্গে রাত কাটালে [তা]র কাছে যাও।

[কুচকু]ঙ্কুম তোর হৃদয়ে [মা]খিল-- যেন

অনু[রাগে]র রঙে গৌর [করিয়া]ছ

অন্যের ভূষণ অঙ্গে লাগিল,

ইহাতে [অ]ন্যের সঙ্গ ব্যক্ত হইতেছে।

[বিদ্যা]পতি ভনে-- এরূপ বলা ভালো নয়,

[বড়ো]র অন্যায় মৌন হয়ে থাকাই উচিত। ৪৪

 

               ১১

     নায়িকা সঁ দূতি বচন

কমল ভ্রমর জগ অছএ অনেক।

সভ তঁহ সে বড় জাহি বিবেক॥

মানিনি তোরিত করিঅ অভিসার।

অবসর থোড়হু বহুত উপকার॥

মধু নহিঁ দেলহ রহলি কি খাগি।

সে সম্পতি জে পরহিত লাগি॥

অতি অতিশয় ওলনা তুঅ দেল।

জাব জীব অনুতাপক ভেল॥

তোহেঁ নহিঁ মন্দ মন্দ তুঅ কাজ।

ভালো মন্দ হোঅ মন্দ সমাজ॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি দুতি কহ গোএ।

নিজ ক্ষতি বিনু পরহিত নহিঁ হোএ॥ ৪৫

 

               ১১

কমল ভ্রমর জগতে অনেক আছে

সব চেয়ে সেই বড়ো যাহার বিবেক আছে।

মানিনী ত্বরায় অভিসার করো--

অল্প অবসর, কিন্তু বহু উপকার।

মধু না দিলি.......

সেই সম্পত্তি যাহা পরহিতের জন্য।........

যাবজ্জীবন অনুতাপ রহিল।

[তো]তে মন্দ না থাক্‌,

[তে]l কাজ মন্দ।

মন্দ সমাজে ভালোও মন্দ হয়।

বিদ্যাপতি কহে-- হে দূতী,

গোপনে বলো যে,

নিজক্ষতি বিনা পরহিত হয় না। ৪৫

 

               ১২

     নায়িকাক প্রতি সখিক প্রবোধন

ধন জৌবন রস রঙ্গে।

দিন দশ দেখিঅ তুলিত তরঙ্গে॥

সুঘটিত বিহ বিঘটাবে।

বাঁক বিধাতা কী ন করাবে॥

ঈও ভল নহিঁ রীতী।

হঠেঁ ন করিঅ দুরি পুরুব পিরীতী॥

সচ [৩] কিত হেরয় আসা।

সুমরি সমাগম সুপহুক পাসা॥

নয়ন তেজয় জল ধারা।

ন চেতয় চীর ন পহিরয় হারা॥

লখ জোজন বস চন্দা।

তৈঅও কুমুদিনি করয় অনন্দা॥

জকরা জাসঁ রীতি।

দুরহুক দুর গেলেঁ দো গুন পিরীতী॥

বিদ্যাপতি কবি গাহে।

বোলল বোল সুপহু নিরবাহে॥ ৪৬

 

               ১২

[ধ]ন যৌবন রসরঙ্গে

দিন দশ তরঙ্গ তোলে।

[বিধি] সুঘটিতকে বিঘটায়--

বাঁকা বিধাতা কী না করায়!

[ইহা ভা]লো রীতি নয়--

জোর করে পূর্ব পিরীত দূর কোরো না।

[সচ]কিতে আশাপথ দেখো

সুপ্রভুর সমাগম স্মরণ করিয়া।

[নয়নে] জল, কাপড় পরাও নেই--

হার পরাও!

[লাখ] যোজনে চাঁদ

তবুও কুমুদিনী আনন্দ করে।

দূরে গেলে দ্বিগুণ পিরীতি........

কথিত কথা নির্বাহ করে। ৪৬

 

          ১৩

কোন বন বসথি মহেস।

কেও নহিঁ কহথি উদেস

তপোবন বসথি মহেস।

ভৈরব করথি কলেস॥

কান কুণ্ডল হাথ গোল [৩]।

তাহি বন পিআ মিঠি বোল॥

জাহি বন সিকিও ন ডোল।

তাহি বন পিয়া হসি বোল॥

একহিঁ বচন বিচ ভেল।

পহু উঠি পরদেস গেল॥ ৪৭

 

          ১৩

কোন্‌ বনে মহেশ বসে

কেহ উদ্দেশ কহে না।

তপোবনে বসে মহেশ,

ভৈরব করিছে ক্লেশ--

কানে কুণ্ডল, হাতে গোলা,

তাহে বনে, পিয়ার মিঠি বোল।

যে বনে তৃণ না দোলে

সে বনে পিয়া হেসে বোলে।

একটি কথা মাঝে হইল--

প্রভু উঠি পরদেশ গেল। ৪৭

 

                ১৪

     নায়িকা কৃত স্বদুখ বর্ণণ

এক দিন ছলি নব রীতি রে।

জল মিন জেহন পিরীতি রে॥

একহিঁ বচন ভেল বীচ রে।

হসি পহু উতরো ন দেল রে॥

একহিঁ পলঙ্গ পর কান্‌হ রে।

মোর লেখ দুর দেশ ভান রে॥

জাহি বন সিকিও ন ডোল রে।

তাহি বন পিআ হসি বোল রে॥

ধরব জোগিনিআক ভেস রে।

করব মেঁ পহুক উদেস রে॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি ভান রে।

সুপুরুখ ন করে নিদান রে॥ ৪৮

 

               ১৪

একদিন নূতন রীতি হয়েছিল,

জলে মীনে যেমন পিরীতি রে।--

একটি কথা মাঝে হল,

হাসি প্রভু উত্তর না দিল।--

একই পালঙ্গ-'পরে কান,

মোর বনে দূরদেশ-জ্ঞান।

যে বনে কিছুই না দোলে

সে বনে পিয়া হাসি বোলে।

ধরিব যোগিনীর বেশ রে,

করিব প্রভুর উদ্দেশ রে।

ভনয়ে বিদ্যাপতি ভান রে--

সুপুরুষ না করে নিদান রে। ৪৮

 

                ১৫

পরকীয়া নায়িকা সঁ নায়ক বচন

পূর্বক প্রেম ঐলহুঁ তুঅ হেরি।

হমরা অবৈত বৈসলি মুখ ফেরি॥

পহিল বচন উতরো নহিঁ দেলি।

নৈন কটাক্ষ সঁ জিব হরি লেলি॥

তুঅ শশিমুখি ধনি ন করিঅ মান।

হমহুঁ ভ্রমর অতি বিকল পরান॥

আস দেই ফেরি ন করিঐ নিরাসে।

হোহু প্রসন হে পুরহ মোর আসে॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি সুনু পরমানে।

দুহু মন উপজল বিরহক বানে॥ ৪৯

 

                  ১৫

পূর্বপ্রেমে আসিনু তোমা হেরিতে।

আমি আসতেই বসিলে মুখ ফিরায়ে--

প্রথম বচনে উত্তর না দিলে,

নয়নকটাক্ষে জীবন হরি নিলে।

তুমি শশিমুখী ধনী না করিয়ো মান--

আমি যে ভ্রমর, অতি বিকল পরান।

আশ দাও, পুন নাহি করিয়ো নিরাশ।

হও হে প্রসন্ন, পূরাও মম আশ।

ভনয়ে বিদ্যাপতি শুন এ প্রমাণ--

দুহু মনে উপজিল বিরহের বাণ। ৪৯

 

               ১৬

     নায়িকা সঁ নায়ক বচন

মানিনি আব উচিত নহিঁ মান।

এখনুক রঙ্গ এহন সন লগইছি

জাগল পয় পচোবান॥

জুড়ি রইনি চকমক কর চানন

এহন সময় নহিঁ আন।

এহি অবসর পহু মিলন জেহন সুখ

জকরহিঁ হোএ সে জান॥

রভসি রভসি অলি বিলসি বিলসি করি

জেকর অধর মধু পান।

অপন অপন পহু সবহু জেমাওলি

ভূখল তুঅ জজমান॥

ত্রিবলি তরঙ্গ সিতাসিত সঙ্গম

ঊরজ শম্ভু নিরমান।

আরতি পতি পরতিগ্রহ মগইছি

করু ধনি সরবস দান॥

দীপ দিপক দেখি থির ন রহয় মন

দৃঢ় করু অপন গেআন।

সঞ্চিত মদন বেদন অতি দারুন

বিদ্যাপতি কবি ভান॥ ৫০

 

                ১৬

     মানিনী, এখন উচিত নহে মান।

এখনকার রঙ্গ এমন-মতো লাগিছে--

             জাগিল পঞ্চবাণ।

জুড়িয়া রজনী চকমক করে চন্দ্র--

             এমন সময় নাহি আন।

হেন অবসরে প্রভুমিলন যেমন সুখ,

             যাহার হয় সেই জানে--

রভসি রভসি অলি বিলসি বিলসি করে

             যেমন (?) অধরমধুপান।

আপন আপন প্রভু সবাই সন্তোষিল,

             ক্ষুধিত তোমারই যজমান॥

ত্রিবলীতরঙ্গ গঙ্গাযমুনাসঙ্গম,

             উরজ শম্ভুনির্মাণ--

পতি আরতি-প্রতিগ্রহ মাগিছে--

             করো, ধনী, সর্বস্ব দান।

একজন দীপ, অপর আলো, মন স্থির রহে না--

             করো দৃঢ় আপন-জ্ঞেয়ান।

সঞ্চিত মদনবেদন অতি দারুণ--

             বিদ্যাপতি কবি ভাণ। ৫০

 

             ১৭

     নায়িকা বিলাপ

মাধব ঈ নহিঁ উচিত বিচারে।

জনিক এহন ধনি কাম কলা সনি

সে কিঅ করু ব্যভচারে॥

প্রাণহুঁ তাহি অধিক কয় মানব

হৃদয়ক হার সমানে।

কোন পরিযুক্তি আন কৈঁ তাকব

কী থিক হুনক গেআনে॥

কৃপিন পুরুখ কৈঁ কেও নহিঁ নিক কহ

জগ ভরি কর উপহাসে।

নিজ ধন অছৈতি নৈ উপভোগব

কেবল পরহিক আসে॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি সুনু মথুরাপতি [৪]

ঈ থিক অনুচিত কাজে।

মাঁগি লাএব বিত সে যদি হোয় নিত

অপন করব কোন কাজে॥ ৫১

 

             ১৭

       মাধব এ নহে উচিত বিচার--

যাহার এমন ধনী কামকলাসম

       সে কি রে করে ব্যভিচার!

প্রাণ হতে তারে অধিক মানি

       হৃদয়ের হার-সমান।

কোন্‌ যুক্তিতে সে অন্যেরে তাকায়--

       এ কিরূপ তার জ্ঞান!

কৃপণ পুরুষে কেহ খ্যাতি নাহি করে,

       জগ ভরি করে উপহাস।

নিজধন থাকিতে না করে উপভোগ,

       কেবল পরের প্রতি আশ।

ভনয়ে বিদ্যাপতি-- শুন মথুরাপতি,

       এ বড়ো অনুচিত কাজ--

মেগে-আনা বিত্ত সে যদি হয় নিত্য তবে

       আপন বিত্ত করিব কোন্‌ কাজ! ৫১

 

              ১৮

       হরি সঁ নায়িকা বচন

আজু পরল মোহি কোন অপরাধে।

কিঅ ন হেরিঐ হরি লোচন আধে॥

আন দিন গহি গৃম লাবিঅ গেহা।

বহু বিধি বচন বুঝাএব নেহা॥

মন দৈ রূসি রহল পহু সোঈ।

পুরখক হৃদয় এহন নহিঁ হোঈ॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি সুনু পরমান।

বাঢ়ল প্রেম উসরি গেল মান॥ ৫২

 

              ১৮

আজু [০] পড়িনু আমি কোন্‌ অপরাধে--

কেন না হেরিছ হরি লোচন-আধে!

অন্যদিন গ্রীবা ধরি নিয়ে আসে গেহ।

বহুবিধ বচনে বুঝাও স্নেহ।

মনে হয় রুষিয়া রহিল প্রভু সেই।

পুরুষের হৃদয় এমন নাহি হয়।

ভনয়ে বিদ্যাপতি শুন এ প্রমাণ--

বাড়িল প্রেম, চলিয়া গেল মান। ৫২

 

              ১৯

       সখী সঁ নায়িকা বচন

মাধব কি কহব তিহরো গেআনে।

সুপহু কহলি জব রোস কয়ল তব

কর মূনল দুহু কানে॥

আয়ল গমনক বেরি ন নীন টরু

তেঁ কিছু পুছিও ন ভেলা।

এহন করমহিন হম সনি কে ধনি

কর সঁ পরসমনি গেলা॥

জৌঁ হম জনতহুঁ এহন নিঠুর পহু

কুচ কঞ্চন গিরি সাধী।

কৌসল করতল বাহুঁ লতা লয়

দৃঢ় কয় রখিতহুঁ বাঁধী॥

ই সুমিরিঐ জব জঁ ন মরিঐ তব

বুঝি পড় হৃদয় পখানে।

হেমগিরি কুমরি চরন হৃদয় ধরু

কবি বিদ্যাপতি ভানে॥ ৫৩

 

              ১৯

   মাধব কী কহিব তাহার জ্ঞেয়ানে।*

সুপ্রভু কহনু [০] যবে রোষ করিল তবে,

       করে মুদিল দুই কানে।

আইল গমনবেলা, নীদ না টুটিল,

       সে তো কিছু নাহি শুধাইল!

এমন কর্মহীন মম সম কোন্‌ ধনী!

       হাত হইতে স্পর্শমণি গেল!

যদি আমি জানিতাম এমন নিঠুর প্রভু

       কুচে কাঞ্চনগিরি সাধি

কৌশল করিয়া বাহুলতা লয়ে

       দৃঢ় করি রাখিতাম বাঁধি।

ইহা স্মরিয়া যবে জীবন না মরিল তবে

       বুঝি বড়ো হৃদয় পাষাণ।

হেমগিরিকুমারী-চরণ হৃদয়ে ধরি

       কবিবিদ্যাপতি-ভান। ৫৩

* অর্থাৎ, মাধবের জ্ঞা[নর] কথা কী ক[হিব]।

 

              ২০

       সখী সঁ নায়িকা বচন

কি কহব আহে সখি নিঅ অগেআনে।

       সগরো রইনি গমাওলি মানে॥

জখন হমর মন পরসন ভেলা।

       দারুণ অরুণ তখন উগি গেলা॥

গুরু জন জাগল কি করব কেলী।

       তনু ঝপইত হম আকুল ভেলী॥

অধিক চতুরপন ভেলহুঁ অজ্ঞানী।

       লাভক লোভ মুরহু ভেল হানী।

ভনহিঁ বিদ্যাপতি নিঅ মতি দোসে।

       অবসর কাল উচিত নহি রোসে॥ ৫৪

 

              ২০

কী কহিব, আহে সখী, নিজ অজ্ঞানে--

       সকল রজনী গোঙাইনু মানে।

যখন আমার মন পরশ করিল

       দারুণ অরুণ তখন উদিত হইল।

গুরুজন জাগিল, কী করিব কেলি--

       তনু ঝাঁপইতে আমি আকুল হইনু।

অধিক চতুরপনে হইনু অজ্ঞানী,

       লাভের লোভে মূলেই হল হানি।

ভনয়ে বিদ্যাপতি-- নিজমতি-দোষ!

       অবসরকালে উচিত নহে রোষ। ৫৪

 

              ২১

       নায়িকা-কৃত স্বদুখ বর্ণন

মাধব তোঁ হে জনি জাহ বিদেসে

হমরো রঙ্গ রভস লয় জৈবহ

লৈবহ কোন সনেসে॥

বনহিঁ গমন করু হোএতি দোসর মতি

বিসরি জাএব পতি মোরা।

হিরা মনি মানিক একো নহিঁ মাঁগব

ফেরি মাঁগব পহু তোরা॥

জখন গমন করু নয়ন নীর ভরু

দেখিও ন ভেল পহু তোরা।

একহি নগর বসি পহু ভেল পরবস

কৈসে পুরত মন মোরা॥

পহু সঙ্গ কামিনি বহুত সোহাগিনি

চন্দ্র নিকট জৈসে তারা।

ভনহিঁ বিদ্যাপতি সুনু বর জৌমতি

অপন হৃদয় ধরু সারা॥ ৫৫

 

              ২১

       মাধব, তুঁহু [০] যদি যাও বিদেশে

আমার রঙ্গ রভস লয়ে যাবে হে--

       রাখিবে কোন্‌ সন্দেশে!

বনে গমন কর হইয়া দুসরমতি (ভিন্নমতি),

       বিসরি যাইবে পতি মোরে,

হীরা মণি মানিক কিছু নাহি মাগিব,

       ফের মাগিব প্রভু তোরে।

যখন গমন করো, নয়নে নীর ভরি

       দেখিতে না পাইনু প্রভু তোরে।

এক নগরেতে বসি প্রভু হইল পরবশ,

       কেমনে পুরিবে মন মোর!

প্রভুসঙ্গে কামিনী বড়োই সোহাগিনী,

       চন্দ্র-নিকটে যেন তারা!

ভনয়ে বিদ্যাপতি-- শুন বরযুবতী,

       আপন হৃদয়ে ধরো সার। ৫৫

 

              ২২

          নায়িকা বিরহ

মোহি তেজি পিআ মোর গেলাহ বিদেস।

       কৌনি পর খেপব বারি বএস॥

সেজ ভেল পরিমল ফূল ভেল বাস।

       কতয় ভমর মোর পরল উপাস॥

সুমরি সুমরি চিত নহীঁ রহে থীর।

       মদন দহন তন দগধ শরীর॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি কবি জয় রাম।

       কী করত নাহ দৈব ভেল বাম॥ ৫৬

 

              ২২

মোরে তেজি পিয়া মোর গেল যে বিদেশ,

       কার 'পরে ক্ষেপিব এ বালিকা-বয়েস

শয্যা হইল সুগন্ধি, ফুলের হইল বাস--

       আমার ভ্রমর কত করিছে উপবাস!

স্মরিয়া স্মরিয়া চিত নাহি রহে স্থির--

       মদনদহন দগধে শরীর।

ভনয়ে বিদ্যাপতি কবি জয়রাম--

       কী করিবে নাথ, দৈব হল বাম। ৫৬

 

              ২৩

          নায়িকা বিরহ

সুন্দরি বিরহ সয়ন ঘর গেল।

       কিএ বিধাতা লিখি মোহি দেল॥

উঠলি চিহায় বৈসলি সির নায়।

       চহু দিসি হেরি হেরি রহলি লজায়॥

নেহুক বন্ধু সেহো ছুটি গেল।

       দুহু কর পহুক খেলাওন ভেল॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি অপরূপ নেহ।

       জেহন বিরহ হো তেহন সিনেহ॥ ৫৭

 

              ২৩

সুন্দরী বিরহশয়নঘরে গেল--

       কী যে বিধাতা কপালে লিখি দিল!

চিয়াইয়া উঠিল, বসিল শির নোয়াইয়া,

       চৌদিশ হেরি হেরি রহিল লজ্জায়--

স্নেহের বন্ধু সেও চলে গেল!

       দুহু কর প্রভুর খেলেনা হইল!

ভনয়ে বিদ্যাপতি অপরূপ লেহ--

       যেমন বিরহ হয় তেমনি সিনেহ। ৫৭

 

          ২৪

       নায়িকা বিরহ

মাধব হমর রটল দুর দেস।

কেও ন কহে সখি কুশল সনেস॥

জুগ জুগ জিরথু বসথু লখ কোস।

হমর অভাগ হুনক কোন দোস॥

হমর করম ভেল বিহ বিপরীত।

তেজলন্‌হি মাধব পুরবিল প্রীত॥

হৃদয়ক বেদন বান সমান।

আনক দুখ কেঁ আন নহিঁ জান॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি কবি জয় রাম।

কি করত নাহ দৈব ভেল বাম॥ ৫৮

 

              ২৪

মাধব আমার রটিল দূর দেশ--

কেহ না কহে, সখী, কুশলসন্দেশ।

যুগ যুগ বাঁচুক, থাকুক লক্ষ ক্রোশ--

আমার অভাগ্য, তাহার কোন্‌ দোষ!

আমার করমে হইল বিধি বিপরীত,

তেজিল মাধব পূরবের প্রীত।

হৃদয়ের বেদনা বাণসমান--

অন্যের দুঃখ নাহি জানে আন।

ভনয়ে বিদ্যাপতি কবি জয়রাম--

কী করিবে নাথ, দৈব হইল বাম। ৫৮

 

          ২৫

       নায়িকা বিরহ

মন পরবস ভেল পরদেস নাহ।

দেখি নিশাকর তন উঠ ধাহ॥

মদন বেদন দে মানস অন্ত।

কাহি কহব দুখ পরদেস কন্ত॥

সুমরি সনেহ গেহ নহিঁ আর।

দারুন দাদুর কোকিল রার॥

সসরি সসরি খসু নিবিবন আজ।

বড় মনোরথ ঘর পহু ন সমাজ॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি সুনু পরমান।

বুঝু নৃপ রাঘব নব পচোবান॥ ৬১

 

              ২৫

মন হইল পরবশ, পরদেশ নাথ--

দেখি নিশাকর জ্বলি উঠে গাত।

মদনবেদন করে মানস-অন্ত--

কাহারে কহিব দুখ, পরদেশ কান্ত।

স্মরিয়া স্নেহ গেহে নাহি আসে।

দারুণ দাদুর কোকিল ভাষে।

স'রে স'রে খসিতেছে নীবিবন্ধ আজ--

বড়ো মনোরথ, ঘরে প্রভু নাহি আজ।

ভনয়ে বিদ্যাপতি, শুন এ প্রমাণ--

বুঝে নৃপ রাঘব নব পাঁচবাণ। ৬১

 

              ২৬

          নায়িকা বিরহ

প্রথম একাদস [৫] দৈ পহু গেল।

সেহো রে বিতিত মোর কত দিন ভেল।

রতি অবতার বয়স মোর ভেল।

তৈও নহিঁ পহু মোর দরসন দেল॥

অব ন ধরম সখি বাঁচত মোর।

দিন দিন মদন দুগুন সর জোর॥

চান সুরুজ মোহি সহিও ন হোএ।

চানন লাগ বিখম সর সোএ॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি গুনবতি নারি।

ধৈরজ ধৈরহু মিলত মুরারি॥ ৬২

 

              ২৬

প্রথম ও একাদশ৫দিয়া প্রভু গেল,

সেও রে অতীত কত দিন হল!

রতি-অবতার বয়স মোর হইল,

তবুও প্রভু না মোরে দরশন দিল!

এখন ধরম বুঝি নাহি বাঁচে মোর,

দিনে দিনে মদন দ্বিগুণ করে জোর!

চাঁদ সূর্য মোরে সহ্য না হয়,

চন্দন লাগে বিষমশরসম!

ভনয়ে বিদ্যাপতি-- গুণবতী নারী,

ধৈরজ ধরহ, মিলবে মুরারী। ৬২

 

              ২৭

       ঊধব সঁ গোপী বচন

চানন ভেল বিখম সর রে

       ভূখন ভেল ভারী

সপনহুঁ হরি নহিঁ আএল রে

       গোকুল গিরধারী॥

একসর ঠাঢি কদম তর [৬] রে

       পথ হেরথি মুরারী।

হরি বিনু দেহ দগধ ভেল রে

       ঝামরু ভেল সারী॥

জাহু জাহু তোঁহেঁ ঊধব হে,

       তোঁ হে মধুপুর জাহে।

চন্দ্র বদন নহিঁ জীউতি রে

       বধ লাগত কাহে॥

ভনহিঁ বিদ্যাপতি তন মন দে

       সুনু গুনমতি নারি।

আজু আওত হরি গোকুল রে

       পথ চলু ঝটঝারি॥ ৬৪

 

              ২৭

  চন্দন হইল বিষম শর

          ভূষণ হইল ভারী--

  স্বপনেও হরি নাহি আইল

          গোকুলগিরিধারী!

  একাকী দাঁড়ায়ে কদমতলে

          পথ নেহারে মুরারি!

  হরি বিনা দেহ দগধ হইল,

          ম্লান হইল সমস্ত!

  যাও যাও তুমি উদ্ধব হে,

          তুমি হে মধুপুরে যাও।

  চন্দ্রবদন নাহি বাঁচিবে--

          বধ লাগিবে কাহাকে?

  ভনয়ে বিদ্যাপতি তন মন দিয়া

          শুন গুণমতী নারী--

  আজ আসিছে হরি গোকুলে রে,

          পথে চলো ঝটঝারি। ৬৪

 

              ২৮

       সখী সঁ নায়িকা বচন

গগন গরজি ঘন ঘোর

       (হে সখি) কখন আওত পহু মোর॥

উগলন্‌হি পাঁচোবান

       (হে সখি) অব ন বচত মোর প্রাণ॥

করব কওন পরকার

       (হে সখি) যৌবন ভেল জিব কাল॥ ৬৫

 

               ২৮

  গগন গরজে ঘন ঘোর,

      কখন আসিবে প্রভু মোর!

          উদিল পঞ্চবাণ,

      এখন বাঁচে না মোর প্রাণ!

          কবির কোন্‌ প্রকার?

               যৌবন হইল জীবনের কাল। ৬৫

 

               ২৯

          নায়িকা বিরহ

  মাধব মাস তীথি ছল মাধব [৭]

          অবধ করিও পহু গেলা।

  কুচ জুগ সম্ভু পরসি হাসি কহলন্‌হি

          তেঁ পরতীতি মোহি ভেলা॥

  অবধি ওর ভেলা সময় বেআপিত

          জীবন বহি গেল আসে।

  তখনুক বিরহ জুবতি নহিঁ জীউতি

          কি করত মাধব মাসে॥

  ছন ছন কয় কঁ দিবস গমাওলি

          দিবস দিবস কয় মাসে।

  মাস মাস কর বরখ গমাওলি

          আব জিবন কোন আসে॥

  আম মজর ধরু মন মোর গহবর

          কোকিল সবদ ভেলা মন্দা।

  এহন বএস তেজি পহু পরদেস গেল

          কুসুম পিউল মকরন্দা॥

  কুমকুম চানন আগি লগাওল

          কেহ কহে সীতল চন্দা।

  পহু পরদেস অনেক কেঁ রাখথি

          বিপতি চিন্‌হিঐ ভল মন্দা॥৬৬

 

                 ২৯

  মাধব মাসে মাধবতিথিতে [৭]

          অবধি করিয়া প্রভু গেল।

  কুচযুগশম্ভু পরশি হাসি কহল [০],

          তাই প্রতীতি মোর হইল।

  অবধি শেষ হইল, সময় বেয়াপিত--

          জীবন বহি গেল আশে।

  তখনকার বিরহেই যুবতী বাঁচে না,

          মাধবমাসে কী করে!

  ক্ষণ ক্ষণ করিয়া দিবস গোঁয়াইল,

          দিবস দিবস করি মাসে!

  দিবস দিবস করি বরষ গোঁয়াইল--

          এখন জীবন কোন্‌ আশে!

  আম্রমঞ্জরী ধরে-- মন মোর গহ্বর (আধার)--

          কোকিলশব্দ হইল মন্দ!

  এমন বয়স ত্যেজি প্রভু পরদেশ গেল!

          পিইল কুসুম মকরন্দ--

  কুকুম চন্দন অগ্নি লাগাইল,

          কে কহে শীতল চন্দ্র!

  প্রভু বিদেশে অনেককে রক্ষা করিতেছেন--

          বিপদের সময়েই ভালো মন্দ চেনা যায়। ৬৬

 

                        ৩০

              সখী সঁ নায়িকা বচন

  মোহন মধুপুর বাস

          (হে সখি) হমহুঁ জাএব তনি পাস॥

  রখলন্‌হি কুবজাক নেহ

          (হে সখি) তেজলন্‌হি হমরো সনেহ॥

  কত দিন তাকব বাট

          (হে সখি) রটলা জমুনাক ঘাট॥

  ওতহি রহথু দৃঢ় ফেরি

          (হে সখি) দরসন দেথু এক বেরি॥৬৮

 

                  ৩০

  মোহন, মধুপুরে বাস--

          আমি যাইব তার পাশ।

  রাখিল কুবুজার স্নেহ--

          তেজিল আমার স্নেহ!

  কত দিন তাকাইব বাট--

          গেছে সে যমুনার ঘাট।

  সেখানেই থাকুক দৃঢ় করি--

          দরশন দিক একবার। ৬৮

 

                ৩১

         সখী সঁ নায়িকা বচন

  আস লতা (হম [৮]) লগাওলি সজনী

          নৈনক নীর পটায়।

  সে ফল অব তরুণত ভেল সজনী

          আঁচর তর ন সমায়॥

  কাঁচ সাঁচ পহু দেখি গেল সজনী

          তসু মন ভেল কুহ ভান।

  দিন দিন ফল তরুণত ভেল সজনী

          পহু পন ন করু গেআন॥

  সভ কের পহু পরদেস বসি সজনী

          আএল সুমিরি সিনেহ।

  হমর এহন পহু নিরদয় সজনী

          নহিঁ মন বাঢ়য় নেহ॥ ৬৯

 

                     ৩১

  আশালতা লাগাইনু

          নয়নের নীর সিঞ্চিয়া।

  তাহার ফল এখন তরুণতা প্রাপ্ত হই [ল,]

          আঁচলের তলে আর সামলায় না।

  কাঁচার মতো প্রভু আমার দেখিয়া গে [ল]--

          তার মন হইল কুয়াশাসমান।

  দিনে দিনে ফল তরুণ হইল

          ইহা সে মনে জ্ঞান করে না?

  সকলকারই পরদেশবাসী প্রভু

          স্নেহ স্মরিয়া আসিল--

  আমার এমন নির্দয় প্রভু

          মনে তার স্নেহ বাড়ে না। ৬৯

 

                    ৩২

          সখী সঁ নায়িকা বচন

  কোন গুন পহু পরবস ভেল সজনী

          বুঝলি তনিক ভল মন্দ।

  মনমথ মন মথ তনি বিনু সজনী

          দেহ দহয় নিশি চন্দ॥

  কহ ও পিশুন শত অবগুন সজনী

          তনি সম মোহি নহিঁ আন।

  কতেক জতন সঁ মেটাবিঅ সজনী

          মেটয় ন রেখ পখান॥

  জঁ দুরজন কটু ভাখয় সজনী

          মোর মন ন হোঅ বিরাম।

  অনুভব রাহু পরাভব সজনী

          হরিন ন তেজ হিম ধাম॥

  জইও তরণি জল শোখয় সজনী

          কমল ন তেজয়  পাঁক।

  জে জন রতল জাহি সঁ সজনী

          কি করত বিহ ভয় বাঁক॥ ৭৫

 

                    ৩২

       বুঝিনু তাহার ভালো মন্দ

  মন্মথ মন মথে তাহা বিনে সজনী...

  তার শত নিন্দা কহ, তবু তার মতো

  আমার আর কেহ নাই।

  মুছিতে কতই যত্ন করো,

  কিন্তু পাষাণের রেখা মোছে না।

  যখন দুর্জন কটু ভাষে,

  আমার মনের বিরাম হয় না।

  রাহুপরাভব অনুভব করিয়া

  হরিণ কখনো চাঁদকে ত্যাগ করে না।

  যদিও তরণীর (নদী) জল শুখায়,

  তবু কমল পাঁককে ছাড়ে না।

  যেজন যাহাতে অনুরক্ত,

  কী করে তার বাঁকা বিধির ভয়! ৭৫

 

                    ৩৩

          নায়িকা বচন পথিক সঁ

  পিআ মোর বালক হম তরুণী।

  কোন তপ চুকলৌঁহ ভেলৌঁহ জননী॥

  পহির লেলি সখি এক দছিনক চীর।

  পিআ কেঁ দেখৈতি মোর দগধ শরীর॥

  পিআ লেলি গোদ কঁ চললি বজার।

  হটিআক লোগ পুছে কে লাগু তোহার।

  নহিঁ মোর দেওর কি নহিঁ ছোট ভাঈ।

  পুরব লিখল ছয় স্বামী হমার॥

  বাট রে বটোহিআ কি তোঁহীঁ মোর ভাঈ।

  হমরো সমাদ নৈহর লেনেঁ জাহূ॥

  কহিহুন ববা কিনয় ধেনু গাঈ [৯]।

  দুধবা পিলায় কঁ পোসত জমাঈ॥

  নহিঁ মোরা টকা অছি নহিঁ ধেনু গাঈ।

  কৌনে বিধি পোসব বালক জমাঈ॥ ৭৯

 

                          ৩৩

      ... কোন্‌ তপে আমি তার মায়ের মতো!

    এক দক্ষিণের কাপড় আমি পরিয়া লইলাম...

    পিয়াকে কোলে নিয়ে বাজারে চললেম।

    হাটের লোকেরা শুধায় "এ তোর কে হয়'--

     এ আমার দেওর নয়, এ আমার ছোটো ভাই নয়,

    পূর্বভাগ্যফলে এ আমার স্বামী।

    চলো রে পথিক, তুমি আমার ভাই--

    আমার সম্বাদ নিয়ে যাও;

    বাবাকে বোলো যেন একটা ধেনু গা [ই৯ কেনে]

    যে, জামাইকে দুধ খাইয়ে পোষা যায়।

    টাকা নেই, গাই নেই--

    কী বিধিতে বালক জামাই পোষা! ৭৯

 

                  ৩৪

পরকীয়া নায়িকা ও নায়ক সঁ প্রত্যুত্তর

সুন্দরি হে তোঁ সুবুধি সেআনি।

মরী পিআস পিআবহু পানি॥

কে তোঁ থিকাহ ককর কুল জানি।

বিনু পরিচয় নহিঁ দেব পিঢ়ি পানী॥

থিকহুঁ পথুকজন রাজ কুমার।

ধনিক বিওগে ভরমি সংসার॥

আবহ বৈসহ পিব লহ পানি।

জে তোঁ খোজবহ সে দেব আনি॥

সসুর ভৈঁসুর মোর গেলাহ বিদেস।

স্বামিনাথ গেল ছথি তনিক উদেস॥

সাসু ঘর আন্‌হরি নৈন নহিঁ সূঝ।

বালক মোর বচন নহিঁ বূঝ॥ ৮০

 

                  ৩৪

"পিয়াসে মরিতেছি আ[মাকে] জল খাওয়াও।'

কে তুমি? কাহার কুল?

বিনা পরিচয়ে পিঁ [ড়ি...] দিই না।

"আমি পথিক রাজকুমার,

ধনীর বিয়োগে সংসার ভ্রমিতেছি।'

তবে বোসো, জল খাওয়াচ্ছি--

যা [খোঁজ? ] তাই এনে দিচ্ছি।

শ্বশুর ভাসুর মোর গেল বিদেশ,

স্বামী গেল [তাদের উদ্দেশ?],

ঘরে অন্ধ শাশুড়ি চোখে দেখে না--

ছেলে আমার কথা বোঝে না। ৮০

 

                  ৩৫

        মৈনা কৃত শিব বর্ণন

ঘর ঘর ভরমী জনম নিত

             তনিকাঁ কেহন বিবাহ।

সে অব করব গোরী বর

             ঈ হোএ কতয় নিবাহ॥

কতয় ভবন কত আগন

             বাপ কতয় কত মাএ।

কতহুঁ ঠওর নহিঁ ঠেহর

             কেকর এহন জমাএ॥

কোন কয়ল এহ অসুজন

             কেও ন হিনক পরিবার।

জে কয়ল হিনক নিবন্ধন

             ধৃক থিক সে পজিআর॥

কুল পরিবার একো নহিঁ জনিকা

             পরিজন ভূত বৈতাল।

দেখি দেখি বুঝ হোএ তন

             কে সহে হৃদয়ক সাল॥

বিদ্যাপতি কহ সুন্দরি

             ধরহু মন অবগাহ।

জে অছি জনিক বিবাহী

             তনিকাঁ সেহ পৈ নাহ॥ ৮১

 

                   ৩৫

নিত্য ঘরে ঘরে ভ্রমে, তার কেমন বিবাহ!

গৌরী তাকেই বর করবে এ কেমনে [নির্বাহ] হয়!

কোথায় ভবন, কোথায় অঙ্গন,

কোথা বাপ ভাই!

কোথাও ঘরের ঠাওর (স্থিরতা) নেই--

কাহার / কে করে এমন জামাই!

কে এমন অসুজনতা করিল!

ইহার কেহ পরিবার নাই--

যে ইহার নিবন্ধন করিল সে পঞ্জিকারকে ধিক্‌!

যার কুল পরিবার কিছুই নাই, ভূত বেতাল পরিজন--

দেখে দেখে শরীর ঝুরিছে-- এ হৃদয়শল্য কে সহে!

যে যার বিবাহী আছে

সে তার নাথ হয়-- বিধির নির্বন্ধ। ৮১

 

পাঠ এবং অর্থ:

          ১  আধারগ্রন্থে রবীন্দ্রনাথ-কর্তৃক উদ্ধৃত গোবিন্দদাসের অনুরূপ

             পদ-- [ভী] তক (ভিত্তির) চীতপুতলি হেরি যো ধনি

      চমকি চমকি ঘন কাঁপ

             [অ]ব অঁধিয়ারে আপন তনু ঝাঁপই

                              কর দেই ফণিমণি ঝাঁপ।

          ২  "ভ্রমর'? মূল এবং শেষ বাক্যে রবীন্দ্রনাথের ব্যাখ্যাও দ্রষ্টব্য।

          ৩আধারগ্রন্থ দ্রষ্টব্য। গ্রীয়র্সন সাহেবের পাঠ বা অর্থখ্যাপন রবীন্দ্রনাথ গ্রহণ করেন নাই। "সচ' (ঢ়ক্ষয়ন) পৃথক্‌ শব্দ ধরেন নাই, অপর পক্ষে "গোল' বলিতে থষং (ইংরাজি অনুবাদের চোরা মুদ্রণপ্রমাদ) গ্রাহ্য না হইলেও শব্দসূচী-ধৃত "তশ তড়দনঢ়ভদ'ড় থষংর' অর্থ অসংগত হইত না।

          ৪  তত্রৈব : মধুরাপতি

          ৫  প্রথম ও একাদশ ব্যঞ্জনাক্ষর, অর্থাৎ, কট : প্রতিশ্রুতি

          ৬  তরু? কদম তরু মুরারির পথ নেহারে?

          ৭  বৈশাখের সপ্তমী তিথিতে

          ৮  গ্রীয়র্সন বলেন : ছন্দোরক্ষার্থে এইরূপ একটি শব্দের বিশেষ প্রয়োজন ছিল!

          ৯  দুগ্ধবতী গাভী

          ০  রবীন্দ্রনাথের লেখায় এইরূপই আছে।

॥ মন্তব্য॥ আধারগ্রন্থ সম্পর্কে পরবর্তী গ্রন্থপরিচয় দ্রষ্টব্য। ১৮৮২ খৃস্টাব্দে বঙ্গীয় এসিয়াটিক সোসাইটি -কর্তৃক প্রকাশিত ইহার যে প্রতি শান্তিনিকেতনের রবীন্দ্রসদনে রক্ষিত, তাহার আখ্যাপত্রে পেন্সিলে রবীন্দ্রনাথের ইংরাজি স্বাক্ষর এবং তাঁহার হাতেই "১লা ফাল্গুন ১৮৮৪' লেখা। আদ্যন্ত গ্রন্থ কবি-কর্তৃক বিশেষ মনঃসংযোগে অধীত এবং নানা টীকা টিপ্পনী ও ভাষান্তর দিয়া চিহ্নিত। গ্রন্থের বিদ্যাপতি অংশে যে ৮২টি পদ আছে তন্মধ্যে ৫২টি পদ রবীন্দ্রনাথের ভাষান্তর অথবা মন্তব্য -সহ ১৩৪৮ সনের অগ্রহায়ণ-ফাল্গুন সংখ্যা প্রবাসীতে মুদ্রিত। এ স্থলে সম্পূর্ণ "রূপান্তর'গুলি বা অর্থবহ বিশেষ বিশেষ কাব্যখণ্ড মাত্র সংকলিত, এজন্য সংখ্যা ৩৫টির বেশি নহে। যে মৈথিলী পদগুলি সম্পূর্ণ সংকলন করা হইয়াছে, বর্তমান গ্রন্থে তাহাদের ক্রমিক সংখ্যা-- ১, ৭, ৮, ১০-১২, ১৪-২৭, ৩৫। সকল ক্ষেত্রে এগুলিরও সমস্তই রবীন্দ্রনাথ ভাষান্তরিত বা রূপান্তরিত করিয়াছেন এমন নয়।

প্রত্যেক মৈথিলী পদের শেষে, আধারগ্রন্থে উহার যে ক্রমিক সংখ্যা তাহাই সংকলন করা হইয়াছে। বাংলা রূপান্তরে তাহার অনুবৃত্তি।

রবীন্দ্রনাথ গ্রীয়র্সন সাহেবের অর্থ কয়েক স্থলে গ্রহণ করেন নাই মনে হয়। উল্লিখিত তৃতীয় টীকায় তাহার নিদর্শন মিলিবে।

সংশোধন॥ আধারগ্রন্থের বিস্তারিত "সংযোজন-সংশোধন' মিলাইয়া (সেইসঙ্গে গ্রীয়র্সন সাহেবের স্বচ্ছন্দ ইংরাজি রূপান্তর তথা শব্দসূচী দেখিয়া) পূর্বমুদ্রিত বহুবিধ ভ্রান্ত পাঠ ত্যাগ করা হইয়াছে। মূল পদাবলী অংশে ইহার অতিরিক্ত সংশোধন অত্যন্ত বিরল। তৃতীয় এবং চতুর্থ টীকায় যে পাঠান্তর গ্রহণের ইঙ্গিত আছে, তাহা রবীন্দ্রনাথের অভিমত অনুসারী। রবীন্দ্র-রচনার পাঠোদ্ধারেও বহু সংশোধনের অবকাশ ছিল, রবীন্দ্রভবনের গ্রন্থখানির সাহায্যে সে বিষয়ে বিশেষ যত্ন করা গিয়াছে।

লিপ্যন্তর॥ একই কালে মিথিলার ও বাংলার লোকপ্রচলিত উচ্চারণ সম্পর্কে সাধারণের মনে যাহাতে ভুল ধারণা না হয়, দেবনাগরী হরপের বিন্দুচিহ্নতে নির্বিচারে অনুস্বারে পরিণত করা হয় নাই। এজন্যই মংডল, সংচি, নংদী, কুংভ, বংধু, কংত, সুংদরি বা সুংদরী না হইয়া-- মণ্ডল, সঞ্চি, ননদী (নন্‌দী), কুম্ভ,বন্ধু, কন্ত (কান্ত), সুন্দরি বা সুন্দরী হইয়াছে। মৈথিলী পদের বানান আর সকল দিক দিয়া অবিকৃত রাখার চেষ্টা হইয়াছে; উহা প্রধানতই উচ্চারণ-সংগত, দেবভাষার ব্যুৎপত্তির ভয়ে ভীত নহে।

সমাসবদ্ধ পদ হইলেই সংযুক্তভাবে ছাপা হইবে এ রীতি না থাকায়, বিরহ শয়ন, সখী বচন, রাধা কৃষ্ণ বিলাস বর্ণন, সরোবর ঘাট বাট কণ্টক তরু, কুচ জুগ কুঙ্কুম রাগ-- এরূপ আধারগ্রন্থে ছিল আর বর্তমান সংকলনেও আছে। রবীন্দ্রনাথ-কৃত ভাষান্তর, বানানের বা বিরামচিহ্নের অধুনা-প্রচলিত রীতির সহিত সংগতি রাখিয়াই ছাপা হইয়াছে। সমাসবদ্ধ শব্দাবলীও একত্র সংহত বা হাইফেনের সংকেতে পরস্পর যুক্ত।

হিন্দী বা মৈথিলী ভাষায় অন্তঃস্থ "ব'এর উচ্চারণ স্বতন্ত্র। মূলে যেখানে যেখানে ঐ বর্ণের ব্যবহার, লিপ্যন্তরে (মৈথিলী পদে) "ব' হরপটি ব্যবহৃত হইয়াছে।

"রভসি ২' বা "যাও ২' আধারগ্রন্থে যদিবা থাকে, বর্তমান সংকলনে "রভসি রভসি' বা "যাও যাও' আকার লইয়াছে-- ইহাও বলিতে হয়।

বিশেষ সম্পাদনা॥ রবীন্দ্র-রচনার পাঠনির্ণয়ে যে-সকল ক্ষেত্রে পূর্বেই জ্ঞাতসারে বা অজ্ঞাতসারে অনুমানের আশ্রয় লওয়া হইয়াছিল অথবা এখনোও অনুমান ভিন্ন গতি নাই (বই বাঁধাইতে গিয়া কবির হাতের লেখা বেশ কিছু ছাঁটাই হইয়াছে) বিশেষ বন্ধনী-মধ্যে _[ ]--সেই-সব আনুমানিক পাঠ দেওয়া হইয়াছে। টীকা-টিপ্পনী-বোধক কয়েকটি বিশেষ অঙ্কচিহ্ন বা ক্রমিক সংখ্যাদি সম্পাদনার সুবিধার জন্য সংযোজিত।