সাঁইত্রিশ


বিশ্বলক্ষ্মী,

তুমি একদিন বৈশাখে

বসেছিলে দারুণ তপস্যায়

রুদ্রের চরণতলে।

তোমার তনু হল উপবাসে শীর্ণ,

পিঙ্গল তোমার কেশপাশ।

দিনে দিনে দুঃখকে তুমি দগ্ধ করলে

দুঃখেরি দহনে,

শুষ্ককে জ্বালিয়ে ভস্ম করে দিলে

পূজার পুণ্যধূপে।

কালোকে আলো করলে,

তেজ দিলে নিস্তেজকে,

ভোগের আবর্জনা লুপ্ত হল

ত্যাগের হোমাগ্নিতে।

দিগন্তে রুদ্রের প্রসন্নতা

ঘোষণা করলে মেঘগর্জনে,

অবনত হল দাক্ষিণ্যের মেঘপুঞ্জ

উৎকণ্ঠিতা ধরণীর দিকে।

মরুবক্ষে তৃণরাজি

শ্যাম আস্তরণ দিল পেতে,

সুন্দরের করুণ চরণ

নেমে এল তার 'পরে।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •