শান্তিনিকেতন, চৈত্র, ১৩৩৩


 

কুটিরবাসী


তরুবিলাসী আমাদের এক তরুণ বন্ধু এই আশ্রমের এক কোণে পথের ধারে একখানি গোলাকার কুটির রচনা করেছেন । সেটি আছে একটি পুরাতন তালগাছের চরণ বেষ্টন ক"রে । তাই তার নাম হয়েছে তালধ্বজ । এটি যেন মৌচাকের মতো,নিভৃতবাসের মধু দিয়ে ভরা । লোভনীয় বলেই মনে করি, সেইসঙ্গে এও মনে হয় বাসস্থান সম্বন্ধে অধিকারভেদ আছে; যেখানে আশ্রয় নেবার ইচ্ছা থাকে সেখানে হয়তো আশ্রয় নেবার যোগ্যতা থাকেনা ।

 

          তোমার কুটিরের

                             সমুখবাটে

          পল্লিরমণীরা

                             চলেছে হাটে ।

          উড়েছে রাঙা ধূলি,

                             উঠেছে হাসি--

          উদাসী বিবাগীর

                             চলার বাঁশি

          আঁধারে আলোকেতে

                             সকালে সাঁঝে

          পথের বাতাসের

                             বুকেতে বাজে ।

          যা-কিছু আসে যায়

                             মাটির  "পরে

          পরশ লাগে তারি

                             তোমার ঘরে ।

          ঘাসের কাঁপা লাগে,

                             পাতার দোলা,

          শরতের কাশবনে

                             তুফান-তোলা,

          প্রভাতে মধূপের

                             গুনগুনানি,

          নিশিথে  ঝিঁঝিঁরবে

                             জাল-বুনানি ।

          দেখেছি ভোরবেলা

                             ফিরিছ একা,

          পথের ধারে পাও

                              কিসের দেখা ।

          সহজে সুখী তুমি

                              জানে তা কেবা--

          ফুলের গাছে তব

                              স্নেহের সেবা ।

          এ কথা কারো মনে

                              রবে কি কালি,

          মাটির "পরে গেলে

                              হৃদয় ঢালি ।

          দিনের পরে দিন

                              যে দান আনে

          তোমার মন তারে

                              দেখিতে জানে ।

          নম্র তুমি,তাই

                              সরলচিতে

          সবার কাছে কিছু

                              পেরেছ নিতে,

          উচ্চ-পানে সদা

                              মেলিয়া আঁখি

          নিজেরে পলে পলে

                              দাও নি ফাঁকি ।

          চাও নি জিনে নিতে

                              হৃদয় কারো,

          নিজের মন তাই

                              দিতে যে পার ।

          তোমার ঘরে আসে

                              পথিকজন,

          চাহে না জ্ঞান তারা,

                              চাহে না ধন,

          এটুকু বুঝে যায়

                              কেমনধারা

          তোমারি আসনের

                              শরিক তারা ।

                    তোমার কুটিরের

                              পুকুর পাড়ে

          ফুলের চারাগুলি

                              যতনে বাড়ে ।

          তোমার কথা নাই,

                              তারাও বোবা,

          কোমল কিশলয়ে

                              সরল শোভা ।

          শ্রদ্ধা দাও,তবু

                              মূখ না খোলে,

          সড়জে বোঝা যায়

                              নীরব ব"লে ।

          তোমারি মতো তব

                              কুটিরখানি,

          স্নিগ্ধ ছায়া তার

                              বলে না বাণী ।

          তাহার শিয়রেতে

                              তালের গাছে

          বিরল পাতাকটি

                              আলোয় নাচে,

          সমুখে খোলা মাঠ

                              করিছে ধূ ধূ,

          দাঁড়ায়ে দুরে দুরে

                              খেজুর শুধু ।

          তোমারি বাসাখানি

                              আঁটিয়া মুঠি

          চাহে না আঁকড়িতে

                              কালের ঝুঁটি ।

          দেখি  যে পথিকের

                              মতোই তাকে,

          থাকা ও না -থাকার

                              সীমায় থাকে ।

          ফুলের মতো ও যে,

                              পাতার মতো,

          যখন যাবে,রেখে

                              যাবে না ক্ষত ।

          নাইকো রেষারেষি

                              পথে ও ঘরে,

          তাহারা মেশামেশি

                              সহজে করে ।

          কীর্তিজালে ঘেরা

                              আমি তো ভাবি,

          তোমার ঘরে ছিল

                              আমারো দাবি;

          হারায়ে ফেলেছি সে

                              ঘূর্ণিবায়ে,

          অনেক কাজে আর

                              অনেক দায়ে ।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •