আলমোড়া, ১৩|৬|৩৭


 

তালগাছ


     বেড়ার মধ্যে একটি আমের গাছে

     গম্ভীরতায় আসর জমিয়ে আছে।

পরিতৃপ্ত মূর্তিটি তার তৃপ্ত চিকন পাতায়,

দুপুরবেলায় একটুখানি হাওয়া লাগছে মাথায়।

 

মাটির সঙ্গে মুখোমুখি ঘাসের আঙিনাতে

সঙ্গিনী তার শ্যামল ছায়া, আঁচলখানি পাতে।

গোরু চরে রৌদ্রছায়ায় সারা প্রহর ধরে;

খাবার মতো ঘাস বেশি নেই, আরাম শুধুই চ'রে।

     পেরিয়ে বেড়া ঐ যে তালের গাছ,

নীল গগনে ক্ষণে ক্ষণে দিচ্ছে পাতার নাচ।

আশেপাশে তাকায় না সে, দূরে-চাওয়ার ভঙ্গী,

এমনিতরো ভাবটা যেন নয় সে মাটির সঙ্গী।

ছায়াতে না মেলায় ছায়া বসন্ত-উৎসবে,

বায়না না দেয় পাখির গানের বনের গীতরবে।

তারার পানে তাকিয়ে কেবল কাটায় রাত্রিবেলা,

জোনাকিদের 'পরে যে তার গভীর অবহেলা।

     উলঙ্গ সুদীর্ঘ দেহে সামান্য সম্বলে

     তার যেন ঠাঁই ঊর্ধ্ববাহু সন্ন্যাসীদের দলে।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •