বৈতরণী


অশ্রুস্রোতে স্ফীত হয়ে বহে বৈতরণী,

চৌদিকে চাপিয়া আছে আঁধার রজনী।

পূর্ব তীর হতে হু হু আসিছে নিশ্বাস,

যাত্রী লয়ে পশ্চিমেতে চলেছে তরণী।

মাঝে মাঝে দেখা দেয় বিদ্যুৎ-বিকাশ,

কেহ কারে নাহি চিনে ব'সে নতশিরে।

গলে ছিল বিদায়ের অশ্রুকণা-হার,

ছিন্ন হয়ে একে একে ঝ'রে পড়ে নীরে।

ওই বুঝি দেখা যায় ছায়া-পরপার,

অন্ধকারে মিটি মিটি তারা-দীপ জ্বলে।

হোথায় কি বিস্মরণ, নিঃস্বপ্ন নিদ্রার

শয়ন রচিয়া দিবে ঝরা ফুলদলে!

অথবা অকূলে শুধু অনন্ত রজনী

ভেসে চলে কর্ণধারবিহীন তরণী!

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •