সূচনা


         কথা কও, কথা কও।

অনাদি অতীত, অনন্ত রাতে

         কেন বসে চেয়ে রও?

         কথা কও, কথা কও।

যুগযুগান্ত ঢালে তার কথা

         তোমার সাগরতলে,

কত জীবনের কত ধারা এসে

         মিশায় তোমার জলে।

সেথা এসে তার স্রোত নাহি আর,

কলকল ভাষ নীরব তাহার--

তরঙ্গহীন ভীষণ মৌন,

         তুমি তারে কোথা লও!

হে অতীত, তুমি হৃদয়ে আমার

         কথা কও, কথা কও।

 

         কথা কও, কথা কও।

স্তব্ধ অতীত, হে গোপনচারী,

         অচেতন তুমি নও--

         কথা কেন নাহি কও!

তব সঞ্চার শুনেছি আমার

         মর্মের মাঝখানে,

কত দিবসের কত সঞ্চয়

         রেখে যাও মোর প্রাণে!

হে অতীত, তুমি ভুবনে ভুবনে

কাজ করে যাও গোপনে গোপনে,

মুখর দিনের চপলতা-মাঝে

         স্থির হয়ে তুমি রও।

হে অতীত, তুমি গোপনে হৃদয়ে

         কথা কও, কথা কও।

 

         কথা কও, কথা কও।

কোনো কথা কভু হারাও নি তুমি,

         সব তুমি তুলে লও--

         কথা কও, কথা কও।

তুমি জীবনের পাতায় পাতায়

         অদৃশ্য লিপি দিয়া

পিতামহদের কাহিনী লিখিছ

         মজ্জায় মিশাইয়া।

যাহাদের কথা ভুলেছে সবাই

তুমি তাহাদের কিছু ভোল নাই,

বিস্মৃত যত নীরব কাহিনী

স্তম্ভিত হয়ে বও।

ভাষা দাও তারে হে মুনি অতীত,

কথা কও, কথা কও।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •