বুয়েনোস এয়ারিস,  ১১ নভেম্বর, ১৯২৪


 

প্রভাত


স্বর্ণসুধা-ঢালা এই প্রভাতের বুকে

যাপিলাম সুখে,

পরিপূর্ণ অবকাশ করিলাম পান।

মুদিল অলস পাখা মুগ্ধ মোর গান।

যেন আমি নিস্তব্ধ মৌমাছি

আকাশপদ্মের মাঝে একান্ত একেলা বসে আছি।

যেন আমি আলোকের নিঃশব্দ নির্ঝরে

মন্থর মুহূর্তগুলি ভাসায়ে দিতেছি লীলাভরে।

ধরণীর বক্ষ ভেদি যেথা হতে উঠিতেছে ধারা

পুষ্পের ফোয়ারা,

তৃণের লহরী,

সেখানে হৃদয় মোর রাখিয়াছি ধরি;

ধীরে চিত্ত উঠিতেছে ভরি

সৌরভের স্রোতে।

ধূলি-উৎস হতে

প্রকাশের অক্লান্ত উৎসাহ,

জন্মমৃত্যুতরঙ্গিত রূপের প্রবাহ

স্পন্দিত করেছি মোর বক্ষস্থল আজি।

রক্তে মোর উঠে বাজি

তরঙ্গের অরণ্যের সম্মিলিত স্বর,

নিখিল মর্মর।

এ বিশ্বের স্পর্শের সাগর

আজ মোর সর্ব অঙ্গ করেছে মগন।

এই স্বচ্ছ উদার গগন

বাজায় অদৃশ্য শঙ্খ শব্দহীন সুর।

আমার নয়নে মনে ঢেলে দেয় সুনীল সুদূর।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •