Home > Verses > পুনশ্চ > মৃত্যু

মৃত্যু    


           মরণের ছবি মনে আনি।

ভেবে দেখি শেষ দিন ঠেকেছে শেষের শীর্ণক্ষণে।

        আছে ব'লে যত কিছু

    রয়েছে দেশে কালে--

যত বস্তু, যত জীব, যত ইচ্ছা, যত চেষ্টা,

     যত আশানৈরাশ্যের ঘাতপ্রতিঘাত

        দেশে দেশে ঘরে ঘরে চিত্তে চিত্তে,

যত গ্রহনক্ষত্রের

    দূর হতে দূরতর ঘূর্ণ্যমান স্তরে স্তরে

        অগণিত অজ্ঞাত শক্তির

           আলোড়ন আবর্তন

        মহাকালসমুদ্রের কূলহীন বক্ষতলে,

           সমস্তই আমার এ চৈতন্যের

    শেষ সূক্ষ্ম আকম্পিত রেখার এ ধারে।

           এক পা তখনো আছে সেই প্রান্তসীমায়,

               অন্য পা আমার

           বাড়িয়েছি রেখার ও ধারে,

    সেখানে অপেক্ষা করে অলক্ষিত ভবিষ্যৎ

        লয়ে দিনরজনীর অন্তহীন অক্ষমালা

               আলো-অন্ধকারে-গাঁথা।

    অসীমের অসংখ্য যা-কিছু

           সত্তায় সত্তায় গাঁথা

               প্রসারিত অতীতে ও অনাগতে।

নিবিড় সে সমস্তের মাঝে

        অকস্মাৎ আমি নেই।

 

               একি সত্য হতে পারে।

উদ্ধত এ নাস্তিত্ব যে পাবে স্থান

    এমন কি অণুমাত্র ছিদ্র আছে কোনোখানে।

        সে ছিদ্র কি এতদিনে

           ডুবাতো না নিখিলতরণী

               মৃত্যু যদি শূন্য হত,

                   যদি হত মহাসমগ্রের

                          রূঢ় প্রতিবাদ।

 

 

  ২৬ ভাদ্র, ১৩৩৯