ছবি    


একলা বসে, হেরো, তোমার ছবি

                   এঁকেছি আজ বসন্তী রঙ দিয়া--

খোঁপার ফুলে একটি মধুলোভী

          মৌমাছি ওই গুঞ্জরে বন্দিয়া।

                   সমুখ-পানে বালুতটের তলে

                   শীর্ণ নদী শান্ত ধারায় চলে,

                   বেণুচ্ছায়া তোমার চেলাঞ্চলে

                             উঠিছে স্পন্দিয়া।

মগ্ন তোমার স্নিগ্ধ নয়ন দুটি

          ছায়ায় ছন্ন অরণ্য-অঙ্গনে

          প্রজাপতির দল যেখানে জুটি

                   রঙ ছড়ালো প্রফুল্ল রঙ্গনে।

                             তপ্ত হাওয়ায় শিথিলমঞ্জরি

                             গোলকচাঁপা একটি দুটি করি

                             পায়ের কাছে পড়ছে ঝরি ঝরি

                                      তোমারে নন্দিয়া।

          ঘাটের ধারে কম্পিত ঝাউশাখে

                   দোয়েল দোলে সংগীতে চঞ্চলি--

আকাশ ঢালে পাতার ফাঁকে ফাঁকে

          তোমার কোলে সুবর্ণ-অঞ্জলি।

                   বনের পথে কে যায় চলি দূরে,

                   বাঁশির ব্যথা পিছন-ফেরা সুরে

                   তোমায় ঘিরে হাওয়ায় ঘুরে ঘুরে

                             ফিরিছে ক্রন্দিয়া।

 

 

  ১৭ বৈশাখ, ১৩৩৮